বৃষ্টি উপেক্ষা করে বিনোদন প্রেমিদের ভীড়

14

স্টাফ রিপোর্টার :সকাল থেকেই বৃষ্টি। কখনো হালকা, কখনো গুঁড়িগুঁড়ি। বৃষ্টি আবহাওয়ার গরম কমিয়ে স্বস্তি দিলেও তা বিনোদন প্রেমিদের কাছে বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। স্বস্তির বৃষ্টি ঈদের আনন্দে বাগড়া দিয়েছে। বিনোদন প্রেমিদের কথা, ‘বৃষ্টি না ঝরলে বাইরে বেড়ানো যাবে। আবহাওয়া যেমনই হোক।’ গতকাল বুধবার সাতসকালে শুরু হয় বৃষ্টি। বৃষ্টিতে অনেকেই বের হতে পারেনি ঘর থেকে। কেউ কেউ বৃষ্টি উপেক্ষা করে বের হয়েছেন ছাতা নিয়ে। বৃষ্টির এমন ধারা ছিলো দুপুর পর্যন্ত। বেলা তিনটার পরে থেমে যায় বৃষ্টি।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক লতিফা হেলেন জানায়, গতকাল বুধবার সকাল ৬টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ২৪ দশমিক ৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। তবে ঈদের দিন সন্ধ্যা ও রাতের দিকে বৃষ্টিপাত হয়। এছাড়া গত মঙ্গলবার সারাদিন কেটেছে বৃষ্টিময়। তবে বৃষ্টিকে পাত্তা না দিয়ে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ছুটে যায় হাজারো মানুষ।
সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজশাহী নগরীর প্রধান বিনোদন কেন্দ্র- শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা, জিয়া শিশুপার্ক, পদ্মা নদীর পাড়, ভদ্রা পার্কে ব্যাপক দর্শনার্থীর ভীড় লক্ষ্য করা গেছে।
বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ছিলো দর্শনার্থীদের ঢল। নগরীর বাইরের জেলার বিভিন্ন স্থানের মানুষের সমাগম ঘটে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। তাদের আনন্দ উপভোগ করতে দেখা গেছে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে।
নগরীর শহিদ কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যানে দর্শণার্থীরা দূরদুরান্ত থেকে এসেছেন বাড়তি বিনোদনের জন্য। কেন্দ্রীয় উদ্যানের ভেতর ছিল লোকারণ্য। তবে সকালের দিকে বৃষ্টির কারণে দর্শণার্থীদের উপস্থিতি কম ছিলো বলে জানায় উদ্যান কর্তৃপক্ষ। তবে বিকালের দিকে দর্শণার্থীদের ভিড় বেড়ে যায় বলে জানা গেছে।
নগরীর বড়কুঠি পদ্মার পাড় ও বিজিবি’র সীমান্ত অবকাশ নোঙ্গর এলাকায় পরিবার পরিজনদের সঙ্গে বেড়াতে আসেন নিশা খাতুন। তিনি বলেন, তাদের অল্প কয়েকদিন হলো বিয়ে হয়েছে। স্বামী ও পরিবারের অন্য সদস্যের সঙ্গে বেড়াতে এসেছেন। তিনি আরো বলেন, পেয়ারা ও ফুচকা খেয়েছি। নৌকাতে ভ্রমণ করেছি। অনেক ভালো লাগছে। এখানে আসার পর তার ঈদের আনন্দ দ্বিগুণ হয়েছে।’
রাজশাহীর দুর্গাপুর থেকে বেড়াতে এসেছেন আবদুর রহমান, জনি ও আশফাক নামে তিন যুবক। তারা জানান, নদীর পাড়ের প্রাকৃতিক দৃশ্য ও নির্মল বাতাস তাদের বেশি ভালো লাগে। ফলে পদ্মা পাড়ে তারা প্রায় বেড়াতে আসেন। এছাড়া ঈদের সময় বেশি লোকজন হওয়ায় সেখানে আরো বেশি আনন্দ হয়।
ট্রি-বাঁধ এলাকায় স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে নৌকা ভ্রমণ করেন বাবু। তিনি বলেন, নৌকায় উঠে নদীর ওপার থেকে ঘুরেও এসেছেন। ভরা নদীতে নৌকায় ঘুরে অনেকে আনন্দ উপভোগ করছেন। নদীর মাঝখানে গিয়ে পদ্মা পাড়ের সৌন্দর্য দেখে তাদের মন জুড়িয়ে যায়।
শহিদ কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িায়াখানার কর্মচারী এইচএম রমজান বলেন, বৃষ্টি উপেক্ষা করে দর্শণার্থীরা এসেছেন। বৃষ্টি না থাকলে আরো দর্শণার্থী বাড়তো। গত মঙ্গলবার ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা ও গতকাল বুধবার প্রায় আড়ায় লাখ টাকার টিকিট বিক্রি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, দর্শণার্থীদের বেশির ভাগ নগরীর বাইরের মানুষ।

SHARE