জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে দেড় হাজার পিচ ইয়াবা উদ্ধার, গ্রেফতার ১

234

স্টাফ রিপোর্টার : জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ১৫০০ পিচ ইয়াবা উদ্ধার ও চিহ্নিত এক মাদক ব্যাবসায়ী গ্রেফতার। গতকাল বৃহস্পতিবার তানোর থানা এলাকায় আমান কোল্ডষ্টোর মোড় ্এলাকা থেকে মমিরুল ইসলাম ওরফে মন্টু নামের এক মাদক ব্যাবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়। এ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক অফিসার ইনচাজ মোস্তাক আহম্মেদ ও পুলিশ পরিদর্শক খালেদুল রহমান, এসআই শহিদুল ইসলাম সঙ্গীয় অফিসার ও র্ফোসসঙ্গীয় ফোর্স। রাজশাহী জেলা পুলিশের মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) ইফতেখায়ের আলম জানান, পুলিশের জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল দুপুরে তানোর উপজেলার কাশিমবাজার এলাকা থেকে দেড় হাজার ইয়াবাসহ মন্টুকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত হলেন, নওগাঁর আত্রাই উপজেলার চকশিমুলিয়া গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেনের ছেলে মমিরুল ইসলাম ওরফে মন্টু (৩৮)। এঘটনায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসএই শহিদুল ইসলাম বাদি হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। সূত্রে জানা যায় মনিরুল ইসলাম মন্টু দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তিনি রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় একাধিক মাদক সেবী সুন্দরী তরুণীদের নিয়ে বাসা ভাড়া করে ইয়াবার ব্যবসার পাশাপাশি চালিয়ে যাচ্ছে অসামাজিক কার্যক্রম। যার সাথে জড়িত আছে নওগাঁর আত্রাইয়ের কথিক এক সাংবাদিক। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তরুণী জানান, সে দীর্ঘদিন যাবৎ আমাকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া করে রাখে। সে যখনই শহরে আসে তখনই সে আমার বাসায় থাকতেন এবং এখানে বসেই ইয়াবার বড় বড় চালান চট্টগ্রাম থেকে এনে নওগাঁয় ঢুকাতেন। গত দু’মাস থেকে সে অন্য এক ইয়াবা সুন্দরী মাদক ব্যবসায়ীকে নিয়ে শহরের তালাইমারী এলাকায় ভাড়া থাকেন। ওই সুন্দরীর বাড়ী পুঠিয়া উপজেলায়। সে সম্প্রতি সময়ে নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় ইয়াবাসহ গ্রেফতার হয়েছিলেন বলে জানান এই তরুণী। এছাড়াও চট্টগ্রাম পাহাড়তলি এলাকার শোভস সেন গুপ্ত ওরফে বাসু নামে এক মাদক ব্যবসায়ী সাথে রয়েছে মন্টুর সখ্যতা। সে শহরের মিয়াপাড়া এলাকায় বসবাস করেন বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে আত্রাই প্রেসক্লাবের সিনিয়র এক সাংবাদিক জানান, মন্টু ও ওই কথিত সাংবাদিক একটি অনলাইনের পরিচয় দিয়ে চলে। তারা আসলেই সাংবাদিক নয়। তাদের দীর্ঘদিন ধরে এই পরিচয় দিয়ে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

SHARE