ইপিআই কার্যক্রমে টানা ৮ বার ১ম রাসিক

179

স্টাফ রিপোর্টার : স্বাস্থ্যসেবায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক)। ইপিআই কার্যক্রমে (সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি) পরপর আটবার জাতীয়ভাবে প্রথম স্থান অর্জন করেছে রাসিক। এটি একটি বিরল দৃষ্টান্ত। আগামীতেও চিকিৎসাসেবার আলোকবর্তিতা হবে রাসিক। গতকাল সোমবার দুপুরে নগরভবন সম্মেলন কক্ষে বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহ (২৪-৩০ এপ্রিল)-২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে ইপিআই ই-রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামানা লিটন একথা বলেন। মেয়র বলেন, রাজশাহীতে শিল্পায়ন হয়নি, বাণিজ্যের প্রসার ঘটেনি। আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও স্বাস্থ্যসেবার ওপর টিকে আছি। শিক্ষা ও স্বাস্থ্যক্ষেত্রে একটা পর্যায়ে গেছি। এটি নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে চাই না। আমরা আরও এগিয়ে যেতে চাই। আগামীতে ইপিআই কার্যক্রম পুরোপুরি ডিজিটাল করতে চাই। মেয়র বলেন, রাসিক ইপিআই কার্যক্রমে ৯৫ শতাংশ সফল হয়েছে। আমাদের অনুসরণ করছে অন্য প্রতিষ্ঠান। এই অর্জন আমরা ধরে রাখতে চাই। রাসিকের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য রক্ষা ব্যবস্থা স্থায়ী কমিটির সভাপতি ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুজ্জামান টুকুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ ডা. বর্ধন জং রানা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিম লিডার ডা. রাজেন্দ্র বোহারা, ইউনিসেফের প্ল্যানিং অ্যান্ড মনিটরিং অফিসার সোনিয়া আফরিন, ইপিআইর ডিপিএম ডা. রেজাউর রহমান, রাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাওগাতুল আলম, উপ-পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাবিব আহসান তালুকদার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম। অনুষ্ঠানে প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবুসহ অন্য কাউন্সিলর, স্বাস্থ্যকর্মীরা ও শিশুদের বাবা-মায়েরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের কাছে ইপিআই ই-রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমের গাইডলাইন দেন ইপিআইর প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. মওলা বকস চৌধুরী। পরে জন্মনিবন্ধন সনদ দেওয়া হয়। এরআগে ইপিআই ই-রেজিস্ট্রেশনের উদ্বোধন উপলক্ষে সকালে নগরভবনের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। এটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বর ঘুরে পুনরায় নগরভবনে গিয়ে শেষ হয়।

SHARE