নানা আয়োজনে নতুন বছরকে স্বাগত জানালো পশ্চিমবঙ্গ

211

স্টাফ রিপোর্টার : নানা আয়োজনে নতুন বছরকে বরণ করছে পশ্চিমবঙ্গ। সোমবার সকাল থেকেই নানা রঙে সেজে, নানাভাবে নতুন বছরকে স্বাগত জানাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গবাসী।

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে এদিন সকাল ৮টায় দক্ষিণ কলকাতায় দুইটি মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয়। একটি গাঙ্গুলিবাগান থেকে যাদবপুর পর্যন্ত অন্যটি সুকান্ত সেতু থেকে ঢাকুরিয়া পর্যন্ত প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রায় অংশ নেন সমাজের সব পেশার মানুষ।

নাচ-গান, পথনাটিকার মধ্য দিয়ে শোভাযাত্রা তার নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে যায়।

প্রথমবারের মতো নববর্ষ উপলক্ষে বাংলাদেশের আদলে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে সল্টলেক এফই ব্লক রেসিডেন্সিয়াল অ্যাসোসিয়েশন।

ধুমধাম করে বর্ষবরণের অনুষ্ঠান উদযাপিত হচ্ছে শান্তিনিকেতনেও। নাচ, গান, আবৃত্তির মধ্য দিয়ে বর্ষবরণে মেতে উঠেছে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এদিন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মভিটে কলকাতার জোড়াসাঁকো ঠাকুর বাড়িতেও সকাল থেকে সঙ্গীত, আবৃত্তির মধ্য দিয়ে বর্ষবরণের নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

ভাষা ও চেতনা সমিতির আয়োজনে সকাল থেকে বর্ষবরণের উৎসব শুরু হয়েছে কলকাতার অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টসের সামনে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে, পার্ক স্ট্রিট জাদুঘরের কাছ থেকে বর্ণাঢ্য বৈশাখী শোভাযাত্রা বের হয়ে শেষ হয় আকাডেমির সামনে। সেখানেই সারাদিন ধরে চলবে কথা, কবিতা, নাচ, গান, নাটক, ছবি আঁকা। সঙ্গে থাকছে সস্তায় পান্তাভাত-শুঁটকি, মাছ-ভাত, আলু পোস্ত আমপোড়া ও শরবত।

নতুন বছর উপলক্ষে দল, রাজ্যবাসী ও দেশের মানুষের মঙ্গল কামনায় দক্ষিণ কলকাতার কালীঘাট মন্দিরে পূজা দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বিশেষ এই দিনে কলকাতা শহরের বিভিন্ন প্রান্তে বের হয় প্রভাতফেরী। ভোর হতেই কালীঘাটের কালী মন্দির, দক্ষিণেশ্বর মন্দির, আদ্যাপীঠ, তারাপীঠসহ রাজ্যটির বিভিন্ন মন্দিরে পূজা দেওয়ার জন্য লম্বা লাইন পড়ে। অনেকে বাড়িতেও এদিন লক্ষী-গণেশ পূজা করেছেন।

আয়োজন করা হয়েছে বিশেষ খাওয়া দাওয়ার। নামি রেস্তোরাঁগুলিতেও বিশেষ বাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়েছে।

SHARE