বাংলা নববর্ষ-১৪২৬’ কে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত রাজশাহী

205

স্টাফ রিপোর্টার : ‘বাংলা নববর্ষ’ বাঙালির সার্বজনীন একটি উৎসবের দিন। ধর্ম-বর্ণ, ধনী-গরিব ও জাত-পাত ভুলে বাঁধভাঙা আনন্দে মেতো ওঠার দিন। ১৬ কোটি বাঙালির আবেগ আর ভালোবাসায় মিশে আছে এই উৎসব। তাইতো বর্ষবরণে উন্মুখ হয়ে উঠেছে বাঙালি জাতি। আজ রোববার বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। চিরায়িত সুরে, শাশ্বত রঙে রাঙিয়ে সব জীর্ণতা ও শীর্ণতা মুছে ফেলে নববর্ষের নতুন আলোয় উদ্ভাসিত হওয়ার লক্ষ্যে রাজশাহী জেলা প্রশাসন দুই দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। পুরনো বছরের গ্লানি মুছে নতুনের প্রত্যাশায় বাংলা নববর্ষকে স্বাগত জানাতে তাই প্রস্তুত সবাই। বর্ষবরণের সেই উৎসবের ছোঁয়া লেগেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলাতেও। বাঙালির সংস্কৃতিকে ধারণ করে ‘বাংলা নববর্ষ-১৪২৬’ কে স্বাগত জানাতে রাত-দিন এক করে দিচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এই বিভাগের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বর্ষবরণের সার্বিক প্রস্তুতির বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে আজ থেকে ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ মোতায়েন থাকবে। আশা করছি প্রতিবারের মতো এবারও নির্বিঘ্নে বৈশাখ উদাযাপিত হবে। এছাড়া বাংলা, নাট্যকলা ও সঙ্গীত, আইন, মার্কেটিং, ফোকলোরসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় সকল বিভাগের পক্ষ থেকে বর্ষবরণের ভিন্ন ভিন্ন প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এদিকে, রাজশাহী জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের জানিয়েছেন বর্ষবরণ উপলক্ষে দিন জুড়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে জেলা প্রশাসন। এরই মধ্যে সকলকে এ ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বর্ষবরণ-১৪২৬ উপলক্ষে আজ রোববার সকাল ৮টায় রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়ে রিভারভিউ কালেক্টরেট স্কুলে গিয়ে শেষ হবে। মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে রিভারভিউ কালেক্টরেট স্কুলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। পরে সকাল ৯টায় একই স্কুলে রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে। বেলা ১১টায় রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমিতে ‘বাংলা নববর্ষ ও বঙ্গবন্ধু’ বিষয়ে কুইজ প্রতিযোগিতা এবং বিকেল ৪টায় সরকারি মাদ্রাসা স্কুল মাঠে ঐতিহ্যবাহী টমটম দৌড় প্রতিযোগিতা ও গ্রামীণ খেলাধুলা আয়োজন করা হবে। এদিকে, পহেলা বৈশাখ উদযাপনে নগরীতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ও অপতৎপরতা দমন করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করবেন। এইজন্য পুলিশ প্রশাসন ও র‌্যাবের কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গঠন করা হয়েছে। তারা সার্বক্ষণিক নগরীতে টহল দিবেন ও নজরদারিতে রাখবেন। রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার একরামুল হক জানান, পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা ও অন্যান্য অনুষ্ঠানগুলোতে নেওয়া হয়েছে দিনব্যাপি পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তিনি আরো জানান, এ উপলক্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী কলেজ, সাহেব বাজার ও পদ্মা নদী সংলগ্ন বিনোদন স্পটগুলোতে নিয়মিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সাদা পোশাকেও থাকবে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। দিনটি উপলক্ষে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার, সব হাসপাতাল, শিশু পরিবার ও শিশু সদনে (এতিমখানায়) উন্নতমানের ঐতিহ্যবাহী বাঙালি খাবার পরিবেশন করা হবে। শিশু পরিবারের শিশুদের নিয়ে ঐতিহ্যবাহী বাঙালি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন, রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে কারাবন্দিদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান রয়েছে বিকেলে। এ সময় কয়েদিদের তৈরি বিভিন্ন পণ্যের প্রদর্শনীর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সন্ধ্যায় বিভাগীয় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর কালচারাল একাডেমিতে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং সকাল থেকে মহানগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। দিবসটি উপলক্ষে শহীদ কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান, বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর ও জিয়া পার্ক সর্বসাধারণের জন্য বিনা টিকিটে সকাল-সন্ধ্যা উন্মুক্ত রাখা হবে। বর্ষবরণ উপলক্ষে রিভারভিউ কালেক্টরেট স্কুল, রাজশাহীতে দুই দিনব্যাপী বৈশাখী ও শিশু আনন্দমেলা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া, নববর্ষ উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটির দিন। সংবাদপত্রগুলো বাংলা নববর্ষের বিশেষ দিক তুলে ধরে ক্রোড়পত্র বের করেছে। সরকারি ও বেসরকারি টিভি চ্যানেলে নববর্ষকে ঘিরে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালা প্রচারিত হচ্ছে।

SHARE