‘স্বামী চরমপন্থী বলে মুখ দেখাতে পারি না’

254

পাবনা প্রতিনিধি : আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে চরমপন্থীদের পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন জয়পুরহাটের চরমপন্থী শেখ ইকবালের স্ত্রী মিসেস রত্না আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে চরমপন্থীদের পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন জয়পুরহাটের চরমপন্থী শেখ ইকবালের স্ত্রী মিসেস রত্না ‘সন্ত্রাসী পেশা ছাড়ি, আলোকিত জীবন গড়ি’- এই প্রত্যয় নিয়ে পাবনায় ১৪ জেলার ৫৯৫ চরমপন্থী আত্মসমর্পণ করেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে পাবনা শহীদ অ্যাডভোকেট আমিন উদ্দিন স্টেডিয়ামে আয়োজিত বর্ণাঢ্য অনষ্ঠানে এসব চরমপন্থী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। এ সময় তারা ৬৮টি আগ্নেয়াস্ত্র এবং ৫৭৫টি দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র জমা দেন। আত্মসমর্পণ করা চরমপন্থীদের মধ্যে একজন মাত্র নারী চরমপন্থী ছিলেন আরজিনা খাতুন (৪০)। তিনি পাবনার চাটমোহর উপজেলার কুয়াবাসী গ্রামের রফিকুল ইসলামের স্ত্রী। আরজিনা অন্যদের মতো নিজেও সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে পাবনা স্টেডিয়ামে আসেন আত্মসমর্পণ করতে। তিনি সন্ত্রাসের এই অন্ধকার পথ থেকে বেরিয়ে এসে আলোর পথে এসে সুখে শান্তিতে জীবনযাপন করতে চান বলে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এক প্রতিক্রিয়ায় জানান। এছাড়া আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে চরমপন্থীদের পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন জয়পুরহাটের চরমপন্থী শেখ ইকবালের স্ত্রী মিসেস রত্না (৩৫)। তিনি এসময় কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, স্বামী চরমপন্থী বলে পাড়া প্রতিবেশী-এমনকি আত্মীয় স্বজনের কাছেও মুখ দেখাতে পারি না। ছেলেমেয়েরা স্কুলে যেতে পারে না। তাদেরকে নানা কথা শুনতে হয়। এ জীবন আর ভালো লাগে না। তিনি বলেন, সরকারের দেয়া এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে আলোর পথে থাকতে চাই। অন্য আর ১০ জনের মতো স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে চাই। রত্নার এই আকুতি উপস্থিত হাজারো মানুষের মর্ম স্পর্শ করে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রত্নার এই বক্তবের রেশ ধরে যারা আত্মসমর্পণ করতে আসেননি, তাদেরকে সুযোগ কাজে লাগানোর আহ্বান জানান।

SHARE