রাজশাহীতে আরও এক আ.লীগ নেতা নিহত

187

স্টাফ রিপোর্টার :রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনে ভোটকেন্দ্র দখল নেয়াকে কেন্দ্র করে জামায়াত-বিএনপির হামলায় মোদাচ্ছের আলী (৪০) নামে আরও এক আওয়ামী লীগ নেতা নিহত হয়েছেন। রোববার দুপুর একটার দিকে তানোর উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মোদাচ্ছের আলী মোহাম্মদপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে। তিনি পাঁচন্দর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মোরশেদ আলী মৃধা জানান, ঘটনার পরে ভোটগ্রহণ স্থগিত আছে।

জেলা পুলিশের মুখপাত্র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুর রাজ্জাক খান জানান, মোদাচ্ছের আলী ভোট দেয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। ওই সময় হঠাৎ করেই জামায়াত-বিএনপির নেতাকর্মীরা লাঠি ও হকিস্টিক নিয়ে হামলা চালায়। হামলাকারীরা ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত ভোটারদের এলোপাথাড়ি মারতে থাকে। এ সময় লাঠির আঘাতে মোদাচ্ছের আলী গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনার পরে ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

এদিকে তানোরে উপজেলা সদরের তানোর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও তানোর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র দখল করে নৌকার কর্মীরা। পুলিশের সামনেই জালভোট দেয়ার সময় ধানের শীষের এজেন্টরা তাদের বাধা দেন।

ঘটনা জানাজানি হলে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এই ঘটনায় পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরে পুলিশ গুলি ও টিয়ারশেল ছুঁড়ে বিশৃংখলাকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন।

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় মেরাজুল ইসলাম (২২) নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। উপজেলার পাইকপাড়া পাকুড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের সামানে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মেরাজুল পাকুড়িয়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

এ ব্যাপারে রাজশাহীর পুলিশ সুপার শহীদুল্লাহ জানান, নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সাথে সম্পৃক্তদের আটকের জন্য অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

SHARE