রাবিতে ‘কুয়াশা উৎসব’

27

স্টাফ রিপোর্টার: ‘আসুন নাচে গানে কবিতায়, মিলি শীতের উৎসবে’ স্লোগানে শীতের কুয়াশা ও সৌন্দর্যকে তুলে ধরতে প্রথম বারের মতো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) পালন হচ্ছে ‘কুয়াশা উৎসব’।

শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টায় শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট সাংস্কৃতিক সংঘের এই আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ভবনের সামনের আমতলায় এ উৎসব শুরু হয়।

আয়োজকরা জানান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বারের মতো কুয়াশা উৎসব শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে কুয়াশা উৎসবে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

এই অনুষ্ঠানে থাকবে নান্দনিক বাংলা গান, লোকগান, পাহাড়ি গান, ধ্রুপদী নাচ, কবিতা আবৃত্তি ও ধ্রুপদী বিতর্ক। পরবর্তী বছরে আরও জাঁকজমকপূর্ণভাবে আয়োজন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন আয়োজক কমিটি।

কুয়াশা উৎসব অনুষ্ঠানের সহযোগী সমন্বয়ক রেজওয়ানুল আলম রিজভী বলেন, নাগরিক জীবনে এখন মানুষ কুয়াশা খুব বেশি দেখতে পায় না। এ ছাড়া আমাদের প্রত্যেকেরই শীত নিয়ে রয়েছে শৈশব স্মৃতি। শীতে নবান্নকে ঘিরে গ্রামে গ্রামে নানা আয়োজন চলে। সেসব স্মৃতি আমাদের জীবনে চলার সঙ্গী হয়ে থাকে। কুয়াশা উৎসবে আমরা সবাই সেসব দিনের স্মৃতিও মন্থন করতে পারি।

তিনি আরো বলেন, প্রথমবারের মতো আমরা কুয়াশা উৎসব পালন করছি। তাই এটি একটি সান্ধ্য সাংস্কৃতিক আয়োজনের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখছি। এরপর থেকে প্রতি বছর উৎসবটি আমরা পালন করব।

শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রভাষক শেখ সেমন্তী বলেন, একজন শিক্ষার্থী নিজেকে শুধু লেখাপড়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা ঠিক নয়। পড়াশোনার পাশাপাশি তাকে সংস্কৃতিমনা হওয়া জরুরি। কারণ আমরা বিশ্বাস করি সংস্কৃতি এমন একটি সেতুবন্ধন যেখানে মানুষে মানুষে কোনো ভেদাভেদ থাকে না। বিশ্ববিদ্যালয়ে নবান্ন উৎসব, পিঠা উৎসবসহ আরো অনেক উৎসব হয়। কিন্তু আজকের উৎসবটি একটু ভিন্ন। এমন একটি চমৎকার ও সুন্দর আয়োজন করার জন্য আয়োজক কমিটিকে সাধুবাদ জানাই।

SHARE