পূত্র-কন্যারা কম নম্বরেও পাশ!

24

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় পেতে হবে নূন্যতম ৪০ নম্বর। কিন্তু পোষ্য কোটার ১৩৬ জন শিক্ষার্থী ১০০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষায় ৪০ পাননি। ফলে কোটার সুবিধা থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পূত্র-কন্যারা ভর্তি হতে পারছেন না। তাই তাদের জন্য নূন্যতম পাশ নম্বরই কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

রোববার ভর্তি উপকমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক অধ্যাপক প্রদীপ কুমার পাণ্ডে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, পোষ্য কোটার পাশ নম্বর ৪০ থেকে কমিয়ে ৩০ ধরার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে এর নিচে আর নামবে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১০ নম্বর ছাড়ের পর যারা যোগ্য বিবেচিত হবেন কেবল তাঁরাই ভর্তি হতে পারবেন। ভর্তি উপ-কমিটির সভায় রোববার এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তিনি জানান, এ বছর (২০২১-২২ সেশন) রাবিতে কোটাসহ মোট আসন ৪ হাজার ৬৪১টি। মোট আসনের পাঁচ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরিজীবীদের সন্তানদের জন্য নির্ধারিত পোষ্য কোটা। এবার পোষ্য কোটার আসন ২০১টি। ভর্তি পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের বেশি পেয়ে ইতোমধ্যে ভর্তি হয়েছেন ৬৫ জন শিক্ষার্থী। কিন্তু ৪০ নম্বর না পাওয়ায় ফাঁকা আছে ১৩৬টি আসন। এ অবস্থায় আসন পূরণে পোষ্য কোটার পাশ নম্বর ৩০ করা হলো।

জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক জানান, নূন্যতম পাশ নম্বরে ১০ নম্বর ছাড় দেওয়ায় এখন আরও ৬০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পাবেন। তবে আরও ৭৬টি আসন ফাঁকাই থাকবে। এসব আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করতে হলে পাশ নম্বর আরও কমাতে হবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আর নিচে নামবে না। পোষ্য কোটার এসব আসন এবার ফাঁকাই থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ অক্টোবর উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তারের সভাপতিত্বে ভর্তি উপ-কমিটির একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় পোষ্য কোটায় ভর্তির ক্ষেত্রে নূন্যতম পাশ নম্বর ৪০ থেকে কমিয়ে ৩০ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়। ‘সি’ ইউনিটে আবশ্যিকে ২৫ ও ঐচ্ছিকে ১০ নম্বর পাওয়ার শর্ত পূরণ করতে পারে নি এমন পোষ্য কোটার শিক্ষার্থীদেরও ভর্তি করার প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু অধিকাংশ সদস্য এতে অসম্মতি জানালে প্রস্তাবটি সভায় পাশ হয়নি। এ নিয়ে রোববার আবার ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার। সেখানেই পোষ্য কোটার পাশ নম্বর কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এর আগেও পাশ নম্বর কমিয়ে রাবিতে অকৃতকার্য শিক্ষার্থী ভর্তি করানো নিয়ে সমালোচনা হয়েছে। গতবছরও একইভাবে পোষ্য কোটায় শিক্ষার্থী ভর্তি করা হলে তুমুল সমালোচনা হয়েছিল। তারপরও এবারও একই পথে হাঁটলো রাবি।

এই পদ্ধতিতে অকৃতকার্য শিক্ষার্থী ভর্তির সমালোচনা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক কুদরত-ই-জাহান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের এই পদ্ধতি কখনো গ্রহণযোগ্য নয়, কাম্যও নয়। শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে নূন্যতম একটা নম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু সেটার নিচে এসে অকৃতকার্য শিক্ষার্থীকে ভর্তি করা ঠিক নয়। বেশিরভাগ শিক্ষকই এই পদ্ধতির বিপক্ষে। কারণ এটা নিয়ে বারবার সমালোচনা ও বিতর্ক হয়।’

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে কোন মন্তব্য করতে চাননি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি কমিটির আহ্বায়ক ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতানুল ইসলাম কোন কথা বলতে চাননি। তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর আছে। সেখান থেকে যে কথা বলা হবে সেটাই আমার বক্তব্য।’

SHARE