বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সিজারিয়ান অপারেশন চালু 

25

মোহাঃ আসলাম আলী ,স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীর বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রতিষ্ঠার ২৯ বছর পর সিজারিয়ান অপরেশন (ওটি) চালু করা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ অফিসার ডাঃ আশাদুজ্জামান বিশেষজ্ঞ সার্জনের হাতে যন্ত্রপাতি তুলে দেয়ার মধ্য দিয়ে এর উদ্বোধন করা হয়।
বুধবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে গাইনি বিশেষজ্ঞ সার্জন ডাঃ ফারহানা ও এনেস্থেসিওলজিষ্ট ডাঃ আবুল এহসান প্রথম সিজার অপারেশনটি করেন। এ সময় সহযোগি হিসেবে ছিলেন,ডাঃ মল্লিকা সরকার ও ওটি ইনচার্জ স্টাফ নার্স ফাতেমা বেগম। এছাড়া শিশু বিশেষজ্ঞ,আবাসিক মেডিকেল অফিসার,হাড়-জোড় বিশেষজ্ঞ ও মেডিসিন কনসালটেন্ট উপস্থিত ছিলেন।
মা ও শিশু উভয়ে সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ আসাদ-উদ ইসলাম। মনিরা বেগম উপজেলার খায়েরহাট গ্রামের কবির হোসেনের স্ত্রী।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ আশাদুজ্জামান আসাদ বলেন, এখানে গাইনি সার্জারি বিশেষজ্ঞ পদায়ন না থাকায় সিজার অপারেশন করা যাচ্ছিল না। পরে স্থানীয় বা আউট সোর্সিং এর মাধ্যমে সিভিল সার্জনের নির্দেশ মোতাবেক নিয়োগকৃত গাইনি সার্জারি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে নিয়ে সিজারিয়ান এ আপারেশনের শুভ উদ্বোধন করা হয়।
তিনি জানান,এখন থেকে সপ্তাহের প্রতি বুধবার ওটি হবে। এছাড়া
গাইনি ও সার্জারি বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দেয়া হলে নিয়মিত সিজারিয়ান অপারেশন করা হবে। এই দুটি পদসহ তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর পদ শুন্য রয়েছে। আমি এখানে যোগদানের পর থেকে প্রাইভেট হাসপাতালমুখী রোগীদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আর এ কাজে সহযোগিতা করছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি।
জানা যায়,এখানে সিজারিয়ান অপারেশন ব্যবস্থা না থাকায় এলাকার প্রসূতি মায়েরা সরকারি হাসপাতালের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হতো। এ বিষয়ে সাবেক (ইউপি) চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক খন্দকার মনোয়ারুল ইসলাম মামুন বলেন,য়ুগোপযোগী এই প্রদক্ষেপের কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই। এটি এলাকাবাসীর জন্য সুঃখবর।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে,১৯৯৩ সালের বাঘায় ৩১ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ২০০৮ সালে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। আধুনিক মানের অপারেশন থিয়েটার, যন্ত্রপাতি থাকলেও বিশেষজ্ঞ সার্জনের অভাবে দির্ঘ ২৯ বছর যাবৎ এখান সিজারিয়ান অপারেশন চালু করা সম্ভব হয়নি।

SHARE