অপহরণের মামলায় জামিনে এসে আরেক অপহরণ

16

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে স্কুলছাত্রকে তুলে নিয়ে নির্যাতন করেছিলেন মেহেদী হাসান পলাশ (২৪)। এ নিয়ে তার বিরুদ্ধে অপহরণের পর নির্যাতনের মামলা হয়। এ মামলায় সম্প্রতি তিনি গ্রেপ্তারও হয়েছিলেন। এ মামলায় জামিনে মুক্তি পেয়ে এবার এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে মেহেদী হাসান পলাশের বিরুদ্ধে।

অপরণের শিকার স্কুলছাত্রী গোদাগাড়ীর মহিষালবাড়ি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর বিকেলে প্রাইভেট পড়ে বাড়িতে ফেরার সময় মহিষালবাড়ি শাহ সুলতান মাদ্রাসার সামনে থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। এ নিয়ে স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে বুধবার সকালে গোদাগাড়ী থানায় অপহরণ মামলা করেছেন।

মামলায় মেহেদী হাসান পলাশ, তার বাবা আনসার আলী ও মা জহুরা বেমগসহ আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। তাদের বাড়ি গোদাগাড়ী উপজেলা সদরেই। গোদাগাড়ী থানা পুলিশ বলছে, অপহৃত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, মেগেদী এই ছাত্রীকে বেশ কিছুদিন ধরে রাস্তাঘাটে উত্যক্ত করে আসছিলেন। এ কারণে স্কুলছাত্রীর বাবা-মা কিছুদিন মেয়ের স্কুলে যাওয়া বন্ধ রেখেছিলেন। মঙ্গলবার বিকেলে স্কুলছাত্রী প্রাইভেট পড়ে বাড়িতে ফিরছিল। এ সময় পলাশ ও তার সহযোগীরা মেয়েটিকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম জানান, মেহেদী হাসান পলাশ এর আগে ৭ সেপ্টেম্বর গড়ের মাঠের সামিউল আলম নামে এক স্কুলছাত্রকে অপহরণ করে। এরপর ওই ছাত্রকে নির্যাতন করে। এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে ১২ সেপ্টেম্বর। কয়েকদিন আগে তিনি জামিনে ছাড়া পেয়ে এসেছেন। এরপরই তার বিরুদ্ধে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগ উঠল। পুলিশ তাকে খুঁজছে এবং মেয়েটিকে উদ্ধারের চেষ্টা করছে বলেও জানান ওসি।

SHARE