রাজশাহীতে সাতদফা দাবিতে সরকারি কর্মচারীদের মানববন্ধন

20

স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় বেতন স্কেলের ১১ থেকে ২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বৈষম্য নিরসনসহ সাতদফা দাবিতে রাজশাহীতে মানববন্ধন করেছেন সরকারি কর্মচারীরা। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত রাজশাহী নগরীর সাহেববাজার জিরোয়েন্টে এ কর্মসূচির আয়োজন করে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী দাবি আদায় ঐক্য পরিষদের রাজশাহী শাখা।

কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি সম্রাট আলম মোল্লা। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বাজারমূল্যের ঊর্দ্ধগতি ও জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির সাথে সমন্বয় করে সকল ভাতা পুণরায় নির্ধারণ করতে হবে। আর সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করতে হবে। আর অবসরের বয়সসীমা ৬২ বছর নির্ধারণ করতে হবে।

জাতীয় বেতন স্কেলের ১১ থেকে ২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বৈষম্য নিরসনে তাঁদের অন্য ছয়টি দাবি হলো- কমিশন গঠন করে নবম গ্রেড বাস্তবায়ন করা ও স্কেল বাস্তবায়নের আগে অন্তবর্তীকালীন সময়ে ৫০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা প্রদান; দশম ধাপে বেতন স্কেল নির্ধারণসহ পে কমিশনে কর্মচারী প্রতিনিধি রাখা, সচিবালয়ের মতো সকল দপ্তর ও অধিদপ্তরের পদ-পদবী পরিবর্তনসহ এক ও অভিন্ন নিয়োগবিধি প্রণয়ন করা; টাইম স্কেল, সিলেকশন গ্রেড, বেতন জ্যেষ্ঠতা পুনরায় বহাল এবং সকল স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে গ্রাচ্যুইটির পরিবর্তে পেনশন প্রবর্তনসহ বিদ্যমান গ্রাচ্যুইটি আনুতোষিকের হার ৯০ শতাংশের বদলে শতভাগ নির্ধারণ এবং পেনশন গ্রাচ্যুইটি ১ টাকা সমান ৫০০ টাকা নির্ধারণ করতে হবে।

এছাড়া সহকারী শিক্ষকদের বেতন নিয়োগবিধি-২০১৯ এর ভিত্তিতে দশম গ্রেডে উন্নীত করা, আউট সোর্সিং পদ্ধতি বাতিল করে ওই পদ্ধতিতে নিয়োগ পাওয়া ও উন্নয়ন খাতের কর্মচারীদের রাজস্বখাতে স্থানান্তর করা এবং ব্লক পোস্টে কর্মরত কর্মচারীসহ সকল পদে কর্মরতদের পদোন্নতি বা ৫ বছর পরপর উচ্চতর গ্রেড প্রদান করার দাবি জানানো হয় কর্মসূচি থেকে।

কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সংগঠনের জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মতিন, বাগমারা উপজেলা শাখার সভাপতি খোরশেদ আলম, সহসভাপতি ওহিদুল ইসলাম, রেজাউল করিম প্রমুখ।

SHARE