রাজশাহীতে সাংবাদিকের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

21

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) কর্মরত সাংবাদিকরা। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে এ দাবি জানানো হয়। তারা হামলায় জড়িত বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরি থেকে স্থায়ী বরখাস্তের দাবি জানান।

মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের (আরইউজে) সভাপতি রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, এই ঘটনার মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যেই আমরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলেছি। পরে আমরা এই ঘটনার মূলহোতা নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশিদসহ কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেছি। আমাদের এই আন্দোলনের কারণে বিএমডিএ কর্তৃপক্ষ দুজনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে।

সমাবেশে আরইউজের সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক বলেন, এটিএন নিউজের রিপোর্টার বুলবুল হাবিব ও ক্যামেরাপারসন রুবেল ইসলামের ওপর যে ন্যাক্কারজনক হামলা হয়েছে তা তদন্তের কিছু নেই। ঘটনাটি টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার হচ্ছিল। দেশবাসী দেখেছে। এর ফুটেজ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিএমডিএ কর্তৃপক্ষের হাতেও আছে। তবে এমন শক্ত প্রমাণ থাকার পরেও যদি নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশিদের বিরুদ্ধে আইনগত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হয় তাহলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলব। আমরা দ্রুত এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।

কর্মসূচিতে আরও বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম, প্রথম আলোর রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক আবুল কালাম মুহম্মদ আজাদ, ডেইলি স্টারে রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক আনোয়ার আলী, রাবি সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুর আলম, রাবি প্রেসক্লাবের সভাপতি বেলাল হোসেন বিপ্লব, রাবি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রাশেদ শুভ্র, রাবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি নুরুজ্জামান খান প্রমুখ। রাবি রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিফ রিয়াদ সঞ্চালনা করেন।

প্রসঙ্গত, গত ৫ সেপ্টেম্বর সকালে বরেন্দ্র ভবনে হামলার শিকার হন এটিএন নিউজের রাজশাহী প্রতিনিধি বুলবুল হাবিব ও ক্যামেরাপার্সন রুবেল ইসলাম। সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক সকাল ৮টায় কর্মকর্তারা অফিসে আসছেন না এমন সংবাদ সরাসরি সম্প্রচার করছিলেন তারা। লাইভ চলাকালে তাদের ওপর হামলা হয়। ভেঙে ফেলা হয় ক্যামেরা ও মাইক্রোফোন।

SHARE