শিক্ষককে কান ধরিয়ে ওঠবসের সত্যতা মিলেছে তদন্তে

27

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর পবা উপজেলার হাড়ুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষককে কান ধরিয়ে ওঠবস করানোর ব্যাপারে তদন্তে ঘটনার সত্যতা মিলেছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। মঙ্গলবার নাম প্রকাশ না করার শর্তে তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এর আগে গত ২৪ আগস্ট হাড়ুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাজমা ফেরদৌসী তাঁর স্কুলের এক সহকারী শিক্ষককে স্কুলে কান ধরে ওঠবস করান বলে অভিযোগ ওঠে। স্কুলের জমিদাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল আজিজের সামনে এভাবে হেনস্থার অভিযোগ তুলে ভুক্তভোগী নারী শিক্ষক উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে এক সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, সোমবার তিনি তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেয়েছেন। এরপর সেদিনই বিকালে তদন্ত প্রতিবেদনটি তিনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়েছেন।

তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুস সালাম মঙ্গলবার দুপুরে বলেন, ‘প্রতিবেদন আমি হাতে পেয়েছি। তদন্তে কী পাওয়া গেছে সেটি আমি বলতে চাচ্ছি না। তবে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আমি জেলা প্রশাসকের সঙ্গে পরামর্শ করতে এসেছি। আমরা এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেব, আপনারা তা দেখতে পাবেন।’

তদন্তে ঘটনার সত্যতা মিললেও গত রোববার স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি সংবাদ সম্মেলন করে তা অস্বীকার করেছিল। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে কমিটির সদস্য ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য মুশফিকুর রহমান রাসেল বলেন, ওই সহকারী শিক্ষক দীর্ঘ দিন ধরেই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক নাজমা ফেরদৌসীর ছবি ব্যবহার করে অশালীন, নোংরা চারটি টিকটক ভিডিও তৈরী করে প্রচার করছিলেন। তিনি এসব অশালীন ভিডিও তৈরী করে বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকদের দেখিয়ে হাসাহাসি করেছেন। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে তাঁর ফেসবুক আইডি থেকে প্রধান শিক্ষকের একাধিক ব্যক্তিগত ছবি ‘মাই ষ্টোরী’তে আপলোড করেছেন। এ ব্যাপারে তাঁকে সতর্ক করা সত্বেও তিনি এধরনের কার্যকলাপ অব্যাহত রাখেন।

তাই এলাকার প্রবীণ বিদ্যোৎসাহী হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল আজিজকে বিষয়টি প্রধান শিক্ষক অবগত করেন। ওই সহকারী শিক্ষক আবদুল আজিজকে চাচা বলে ডাকেন। তাই তিনি ওই শিক্ষককে সামান্য বকাঝকা করেন। তাঁকে কান ধরে ওঠবস করানোর মতো কোন ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি দাবি করেন। ওই সংবাদ সম্মেলনে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোমিনুল ইসলাম এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল আজিজও উপস্থিত ছিলেন।

SHARE