আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাথে হিজড়া সংঘের সভা

13

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের সাথে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিনের আলো হিজড়া সংঘ ও ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টার রাজশাহীর আয়োজেন এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ও গ্লোবাল এ্যাফেয়ার্স কানাডায় অর্থায়নে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। রোববার সকাল ১০টা হতে দুপুর পর্যন্ত চলমান সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী রেঞ্জ ডিআইজি আব্দুল বাতেন, বিপিএম, পিপিএম।

ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারে কম্যান্ড্যান্ট পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তারিকুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী রেঞ্জ এর অতিরিক্ত ডিআইজি রশিদুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার সোনাতন চক্রবর্তী ও দিনের দিনের আলো হিজড়া সংঘের সভাপতি মোহনা।

আরো উপস্থিত ছিলেন দিনের আলো হিজড়া সংঘের সাধারণ সম্পাদক সাগরিকা খান, সহ-সম্পাদক জয়িতা পলি, কোষাধ্যক্ষ জুলি, দিনের আলো হিজড়া সংঘের মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের প্রকল্পের প্রোগ্রাম সমন্বয়কারী মৌসুমী খাতুন, কোষাধ্যক্ষ মোস্তাক আহম্মেদ ও প্রোগ্রাম অফিসার রায়হানুল হক রায়হানসহ জেলার বিভিন্ন থানার পুলিশ কর্মকর্তা ও তৃতীয় লিঙ্গের জনগণ।

তৃতীয় লিঙ্গের সদস্যদের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা ও তাদের জীবন কাহিনী প্রধান অতিথি শোনেন এবং বক্তব্যে বলেন, আইন শৃংখলাবাহিনী সর্বদা তৃতীয় লিঙ্গের জনগণের ভাল কাজের সাথে আছেন। সরকার এই জনগোষ্ঠিকে ২০১৩ সালে স্বীকৃতি দিয়েছেন। সেইসাথে বাজেটে তাদের জন্য আলাদাভাবে অর্থ বরাদ্দ, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা ও পৈত্রিক সম্পদের অংশিদারিত্ব নিশ্চিত করেছেন সরকার। এখন তাদের শুধু এগিয়ে যাওয়ার পালা।

তিনি আরো বলেন, কেউ কাউকে স্থান করে দেয়না নিজের জায়গা নিজেকে তৈরী করে নিতে হয়। সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি ও নেতিবাচক দিক সবার ক্ষেত্রেই রয়েছে। রাস্তায় অনেক সময় মেয়ে ও নারীদের বকাটেরা কটুক্তি ও বাজে কথা বলে। তাতে কি ঐ মেয়ে বা নারী বাড়ির বাহিরে আসা বন্ধ করে দেয়? এ বিষয়গুলো ভাবতে হবে। নিজেদের ভাবমুর্তি সমাজ তথা দেশের নিকট তুলে ধরতে লেখাপড়া শিখতে হবে, কর্ম করতে হবে, মানুষের দ্বারে দ্বারে যাওয়া ক্রমন্বয়ে কমিয়ে আনতে হবে এবং হিজড়া গুরু প্রথা বন্ধ করতে হবে বলে বক্তব্যে উল্লেখ করেন প্রধান অতিথি।

SHARE