ভর্তি প্রক্সির দায়ে রাবি শিক্ষার্থীসহ ৩ জনের ১ বছরের কারাদণ্ড

15

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ভর্তি পরীক্ষা চলাকালে ভর্তি জালিয়াতির দায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীসহ তিনজনকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) ‘এ’ ইউনিটের (মানবিক) পরীক্ষা চলাকালে তাদেরকে আটকের পর এই শাস্তি দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বর্তমানে তারা রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- এখলাসুর রহমান, মো. বায়োজিত এবং জান্নাতুল মেহজাবিন। এদের মধ্যে এখলাসুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। মো. বায়োজিত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের এবং জান্নাতুল মেহজাবিন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, ‘এ’ (মানবিক) ইউনিটের প্রথম শিফটের পরীক্ষার্থী ছিলেন লিমন নামের এক ভর্তিচ্ছু। তার রোল নম্বর ১৭ হাজার ২২৮। তার পরীক্ষার হল ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া একাডেমিক ভবনে। তবে তার পরিবর্তে প্রক্সি (বদলি পরীক্ষা) দিতে আসেন এখলাসুর। পরীক্ষা চলাকালে তাকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে এখলাসুর জানাই ৫০ হাজার টাকা চুক্তির মাধ্যমে তিনি প্রক্সি (বদলি) দিতে এসেছেন।

অন্যদিকে দ্বিতীয় শিফটের পরীক্ষায় ড. সত্যেন্দ্রনাথ বসু একাডেমিক ভবনে সিট পড়ে তানভীর আহম্মেদ নামের এক শিক্ষার্থীর। যার রোল নম্বর ৩৯ হাজার ৫৩৪। তবে তার পরিবর্তে পরীক্ষা দিতে হলে যান বায়োজিত নামের রাবি শিক্ষার্থী। পরীক্ষা চলাকালে র‌্যাব তাকে আটক করে। এছাড়াও জান্নাতুল নামের এক নারী শিক্ষার্থীকেও ভর্তি জালিয়াতির অভিযোগে আটক করা হয়েছে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, ‘এ’ ইউনিটের পরীক্ষা চলাকালীন সন্দেহ হওয়ায় দুই যুবক এবং এক নারীকে আটক করা হয়েছে। আটকের পর তাদেরকে প্রক্টর দফতরে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাদেরকে কয়েক ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। কিন্তু তারা বারবার তাদের মিথ্যা পরিচয় দিতে থাকে। একপর্যায়ে আমরা তাদের পরিচয় নিশ্চিত হতে পেরেছি। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদেরকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রশাসনের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, তাদেরকে প্রক্সি দেওয়ার অপরাধে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রে নিয়োজিত ভ্রাম্যমান আদালতের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কৌশিক আহমেদ তাদের এই কারাদণ্ড দেন। পরে তাদেরকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা শক্তিশালী থাকার কারণে তাদেরকে আটক করা সম্ভব হয়েছে। কোনোরুপ জালিয়াতি যাতে না হয় সেজন্য মাঠে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ গোয়েন্দারা কাজ করছে।

SHARE