আড়ানী পৌর মেয়র মুক্তার গ্রেফতার

9

স্টাফ রির্পোটার : বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভার মেয়র মুক্তার আলীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার (৬ জুন) রাত সাড়ে ১২টার দিকে পৌরসভার পিয়াদা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মুক্তার আলী একাধিক মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

রাজশাহী জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক আতিক আহমেদ পৌর মেয়র মুক্তার আলীকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, নিম্ন আদালতে জামিন না নেওয়ায় অস্ত্র, মাদক ও চাঁদাবাজি মামলায় আড়ানী পৌরসভার মেয়র মুক্তার আলীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তাকে দুপুরের (৭ জুন) মধ্যে আদালতে পাঠানো হবে বলেও জানান- ডিবি পুলিশের এই কমকর্তা।
২০২১ সালের ১৬ জানুয়ারি আড়ানী পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শাহিদুজ্জামান শাহিদকে পরাজিত করে মুক্তার আলী মেয়র নির্বাচিত হন।

বিদ্রোহী প্রার্থী হবার কারণে মুক্তার আলীকে আড়ানী পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।
ওই বছরের ৬ জুলাই দিবাগত রাত ১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত আড়ানী পৌর এলাকার পিয়াদাপাড়া মহল্লায় মেয়র মুক্তারের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ।

এ সময় মেয়র মুক্তার আলীর বাড়ি থেকে প্রায় কোটি টাকা, অস্ত্র এবং মাদক উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে একটি অবৈধ বিদেশি পিস্তল, একটি ওয়ান শুটার গান, দেশীয় তৈরি একটি বন্দুক, একটি এয়ার রাইফেল, শটগানের ২৬ রাউন্ড গুলি, চারটি পিস্তলের ম্যাগজিন, পিস্তলের ১৭ রাউন্ড গুলি, চারটি গুলির খোসা, ১০ গ্রাম গাঁজা, সাত পুরিয়া হেরোইন, ২০ পিস ইয়াবা, নগদ ৯৪ লাখ ৯৮ হাজার টাকা এবং মেয়রের দুটি সই করা চেক জব্দ করা হয়।

চেকে টাকার পরিমাণ ছিল ১৮ লাখ। এ সময় মেয়র মুক্তারের স্ত্রী জেসমিন আক্তার (৪০) এবং দুই ভাতিজা সোহান (২৫) ও শান্তকে (২৩) আটক করে পুলিশ। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যান মুক্তার আলী। পরে তাকে আটক করা হয়। এরপর তাকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

কিন্তু উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে তিনি আবারও পদ ফিরে পান এবং বাঘার আড়ানী পৌরসভার দায়িত্বে বসেন।

SHARE