ট্রেনের টিকিট বিক্রি তদারকিতে পশ্চিমের জিএম

30

স্টাফ রির্পোটার : রাজশাহীতে শুরু হয়েছে ঈদের পর ফিরতি ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি। আর টিকিট বিক্রি তদারকি করছেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) অসীম কুমার তালুকদার নিজেই। আজ রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কাউন্টারের সামনে নিজেই তদারকি করেন তিনি।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যাত্রার পাঁচ দিন আগে অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হয়। রোববার সকাল ৮টায় রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে ঈদের পরের ৫ এপ্রিলের টিকিট বিক্রি শুরু হয়। এই টিকিট পেতে আগের দিন সন্ধ্যা থেকেই টিকিট প্রত্যাশীরা কাউন্টারের সামনে বসে পড়েন। রাত গভীর হলে সেখানেই শুয়ে ঘুমিয়ে যান অনেকে।

রোববার ভোর থেকেই দীর্ঘ হয়ে যায় কাউন্টারের সামনের লাইন। সকাল ৮টায় শুরু হয় টিকিট বিক্রি। এ সময় বিশৃঙ্খলা এড়াতে তৎপর থাকেন রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী (আরএনবি) ও পুলিশের সদস্যরা। কাউন্টারের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন পশ্চিম রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও।

কর্মকর্তাদের মধ্যে জিএম অসীম কুমার তালুকদারের ব্যস্ততা ছিল চোখে পড়ার মতো। টিকিট প্রত্যাশীদের যে কেউ যেকোনো বিষয় জানতে চাইলে হাসিমুখেই উত্তর দিচ্ছিলেন জিএম। এক কাউন্টারের সামনে ভিড় একটু কমলে অন্য লাইন থেকে টিকিট প্রত্যাশীদের এনে দাঁড় করাচ্ছিলেন তিনি। ফলে তুলনামূলক কম সময়ের মধ্যে টিকিট পাচ্ছিলেন যাত্রীরা।

বেলা ১১টা ১০ মিনিটে আগামী ৫ এপ্রিলের রাজশাহী-ঢাকা রুটের ট্রেনগুলোর এসি আসনগুলোর টিকিট বিক্রি শেষ হয়। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শেষ হয় নন-এসি আসনগুলো। তারপর ট্রেনগুলোর শুধু নিকটস্থ গন্তব্যের টিকিট ছিল। নন-এসি টিকিটও শেষ হওয়ার পর জিএম অসীম কুমার তালুকদার স্টেশন থেকে চলে যান।

স্টেশন ত্যাগ করার আগে তিনি বলেন, ‘আগামী ৫ এপ্রিল রাজশাহী থেকে সিল্কসিটি, পদ্মা, ধূমকেতু ও বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেন ঢাকা যাবে। রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন ট্রেনগুলোর ১ হাজার ২৫১টি টিকিট বিক্রির জন্য পেয়েছিল। এর মধ্যে এসি টিকিট ছিল ৩৮০টি। বাকিগুলো নন-এসি। সব সুশৃঙ্খলভাবে বিক্রি করা হয়েছে।

এ দিন ঈদের পরের ৫ এপ্রিলের টিকিট বিক্রি করা হলেও ৪ এপ্রিলের টিকিট বিক্রি করা হয়নি। ৪ এপ্রিলের টিকিট কখন বিক্রি করা হবে তা আগেই পশ্চিম রেলের ফেসবুক পেজে জানিয়ে দেওয়া হবে। ঈদের দিন টিকিট বিক্রি বন্ধ থাকবে।

SHARE