বাঘায় সুদের টাকা না পেয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা

132

বাঘা প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘায় সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় এক গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা চালানো হয়েছে। আর এ ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে ধর্ষকের হাতে বেধড়ক মারপিটের শিকার হয়েছেন গৃহবধূর স্বামী । সোমবার সকালে উপজেলার চন্ডিপুর বড় ছয়ঘটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন আহত সাজেদুলকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করেছেন। পরে দুপুরে গৃহবধূ বাদি হয়ে বাঘা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চন্ডিপুর এলাকার বড় ছয়ঘটি গ্রামের মুন্নাফ আলীর ছেলে রতন আলী (৪০) এর কাছ থেকে গত তিন বছর পূর্বে ফুসকা ব্যবসা করার জন্য একটি ব্যাংক চেক জমা দিয়ে সুদের উপর ২০ হাজার টাকা গ্রহণ করে একই গ্রামের সাজেদুল হক। তিনি এই টাকার বিপরীতে ৪০ হাজার টাকা পরিশোধ করেছে। সাজেদুল হকের নিকট আরো ৫০ হাজার টাকা দাবি করছে রতন আলী। অভিযোগ রয়েছে, এই পাওনা টাকার সূত্র ধরে রতন আলী বিভিন্ন সময় সাজেদুলের স্ত্রীকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। সোমবার সকাল ৬ টার সময় সাজেদুলের বাড়িতে প্রবেশ করে রতন আলী। এ সময় বাড়িতে কেউ না থাকার সুবাদে রতন আলী সাজেদুল হকের স্ত্রীকে অবশিষ্ঠ টাকা দেয়া লাগবে না বলে জোরপূর্বক ফাঁকা বাড়ির শোবার কক্ষে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এ সময় সাজেদুলের স্ত্রী চিৎকার দিলে তাৎক্ষণাৎ তার স্বামী ঘরে প্রবেশ করে সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী মারাত্মকভাবে আহত হন।

স্থানীয় সাইদুল ইসলাম ও মিলনসহ অনেকেই জানান, স্ত্রীর চিৎকার শুনে সাজেদুল বাড়িতে প্রবেশ করলেও প্রতিপক্ষ রতন আলীর শারীরিক শক্তির কাছে সে পরাস্ত হয়েছে। সে এখন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি। ঘটনার পর থেকে রতন পলাতক রয়েছেন ।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মহাসিন আলী অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,  একজন অফিসারকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে ছিলাম। কিন্তু অপরাধীকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

SHARE