প্রাইভেটকারে পড়ে ছিল চালকের অর্ধগলিত লাশ

42
প্রাইভেটকার থেকে উদ্ধার করা হয় চালক ফেরদৌস আলীর অর্ধগলিত মরদেহ।

অনলাইন ডেস্ক : বগুড়ার সদর উপজেলায় প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে ফেরদৌস আলী (৩৬) নামের এক গাড়ি চালকের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে সদরের মালতিনগর বকশিবাজার এলাকায় একটি গ্যারেজ থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ফেরদৌস যে প্রাইভেটকারটি চালাতেন সেটি থেকেই তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতের বাড়ি উপজেলার গাবতলী এলাকায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বগুড়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ফয়সাল মাহমুদ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ফেরদৌস নাহিদা সুলতানা নামে এক চিকিৎসকের গাড়ি চালক। নাহিদা সুলতানা মালতিনগর হাইস্কুল এলাকার বাসিন্দা। তাঁর প্রাইভেটকারটি পাশের বকশিবাজার এলাকার একটি গ্যারেজে রাখা হতো। গ্যারেজটির মালিক নাহিদার স্বামী ব্যাংক কর্মকর্তা জিয়া আনসারী। তিনি ঢাকায় অগ্রণী ব্যাংকে কর্মরত রয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার ব্যাংক কর্মকর্তা জিয়া আনসারী ও তাঁর স্ত্রী ঢাকায় গেছেন। বৃহস্পতিবার রাতে চালক ফেরদৌস আলী প্রাইভেটকার নিয়ে তাঁদেরকে সাতমাথা এলাকায় পৌঁছে দেন। পরে তাঁরা ঢাকামুখী কোচে ওঠার পর ফেরদৌস গাড়ি নিয়ে গ্যারেজের দিকে রওনা হন।

তাঁরা আরও জানান, বেলাল হোসেন নামে একজন ইলেকট্রিশিয়ান কাম কেয়ারটেকার ওই গ্যারেজ দেখাশোনা করেন। শনিবার রাতে তিনি বকশীবাজার এলাকায় গ্যারেজের ভেতরে যাওয়ার জন্য সাটার খোলেন। এরপর সেখান থেকে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ বের হতে থাকে। পরে তিনি গ্যারেজে প্রবেশ করে প্রাইভেটকারে ভেতর ফেরদৌসের মরদেহ দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে তিনি স্থানীয়দের খবর দেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে পাঠায়।

পুলিশ কর্মকর্তা ফয়সাল মাহমুদ বলেন, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়া গেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

SHARE