বিধিনিষেধের শেষ দিনেই স্বাভাবিক নগরী

22

স্টাফ রির্পোটার : রাজশাহীতে বিধিনিষেধের শেষ দিনেই অনেকটা স্বাভাবিক ছিলো নগরীর বাজারহাট ও দোকানপাট গুলো। মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) রাজশাহী মহানগরী গুরুত্বপূর্ণ বাজার গুলোতে গিয়ে দেখা যায় রাস্তায় ইচ্ছেমত মানুষ চলাচল করেছে। মার্কেট গুলোতে অর্দ্ধেক সাটার বা পুরো সাটার খুলে দিব্বি চলেছে বিকি-কিনি। সাহেব বাজার, মণি চত্বও, লক্ষীপুর, নিউ মার্কেট, রেলগেট উপশহরসহ কয়েকটি মোড়ে ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র। অনেক দোকানে মানা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি। বিপনন-বিতনী, মোবাইল বিক্রির, ইলেকট্রনিকসসহ যাবতীয় পণ্যে গুলোর দোকানে ক্রেতাদের আনাগোনা ছিলো। বেলা বাড়ার সাথে সাথে অন্য দিন যেমন মানুষের উপস্থিতি কম ছিলো গতকাল তা লক্ষ করা যায়নি। স্বাভাবিকের মতই চলেছে সবকিছু।
এদিকে আঝ (১১আগস্ট) থেকে শিথিল বিধিনিষেধ দিয়ে গণপরিবহন, শমিং মল ও দোকানপাট খুলবে। তাই অন্য সময়ের মতই হ্যান্ড মাইক দিয়ে সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যাপারে সচেতন করা হচ্ছে। সাথে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ফ্রিতে বিতরণ করেছে মাস্ক। এদিকে রাজশাহী মেডিকেলের বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, রাজশাহীতে সংক্রমণ মাঝে মাঝে বাড়ছে আবার মাঝে মাঝে কমছে। তাই জীবন ও জীবিকা রক্ষার্থে শিথিল করা হলেও স্বাস্থ্যবিধির যেন কোন রকম ঘাটতি না হয়। কঠোর ভাবেই যেন স্বাস্থ্যবিধি নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এই বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে গুরুত্বফ’র্ণ ভ’মিকা পালন করতে হবে।
এদিকে পাবনা ও সিরাজগঞ্জের দিকে এখন সংক্রমণ বেশি। রামেক হাসপাতালে ভর্তিরত বেশির ভাগ মানুষ এই দুই জেলার। অন্যদিকে রাজশাহীতে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ সময়ে জরিমানা করা হয়েছে ২০ হাজার ৫০০ টাকা। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ কাউছার হামিদ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮ টায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে মঙ্গলবার সকাল থেকে রাজশাহী নগরী ও উপজেলা গুলোতে এই জরিমানা করা হয়। মোহাম্মদ কাউছার হামিদ আরও বলেন, লকডাউন চলাকালে সরকারের ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করার অভিযোগে দন্ডবিধি-১৮৬০ এবং সংক্রামক রোগপ্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ, নির্মূল আইন-২০১৮ সালের আইনে ২৭ জনকে মামলা দেয়া হয়েছে। জরিমানা করা হয়েছে ২০ হাজার ৫০০ টাকা। এসময় ৩ জনের বিরুদ্ধে কারাদ- দেয়া হয়েছে। একই সময়ে অসচ্ছল এক হাজার মানুষকে ১৬৬ টি মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। সর্বাত্মক লকডাউন চলাকালে বিধিনিষেধ অনুযায়ী জরুরি ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকানের বাইরে কেউ দোকানপাট খুলতে পারবে না। এ সময়ে অপ্রয়োজনে কেউ বাইরেও বের হতে পারবে না। জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলেও মাস্ক পরতে হবে, স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। কিন্তু লক্ষ করা গেছে, এই সময়েও কেউ কেউ দোকান খুলেছে। তাদের জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া যাঁরা মাস্ক পরেননি কিংবা স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করেছেন, তাঁদেরও মামলা দেওয়া হয়েছে।

SHARE