নগরীতে নকল ওষুধ কারখানা থেকে ওষুধ ও সরঞ্জাম জব্দ,গ্রেফতার ২

43

স্টাফ রির্পোটার : রাজশাহী নগরীতে দুই বছর ধরে দেশের বিভিন্ন নামিদামি কোম্পানির লোগো ব্যবহার করে নকল ওষুধ উৎপাদন করে আসছিলো একটি চক্র। সেই চক্রদের কারখানা তল্লাশী করে ৭০ লাখ ৯৭ হাজার ৩০০ টাকা মূল্যের বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ ও ওষুধ তৈরির কাঁচামাল ও যৌন বর্ধক ট্যাবলেটসহ ঔষধ তৈরির মেশিন জব্দ করা হয়। সেই সাথে এই চক্রের দুইজনকে গ্রেফতার করেছে, রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়ান্দা শাখা।

গত শুক্রবার রাতে নগরীর ভদ্রা জামালপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা হলেন, নগরীর ভদ্রা জামালপুর এলাকার মৃত আনসার আলীর ছেলে শফিকুল ইসলাম ওরফে আনিছ (৪২) ও তার সহযোগী রবিউল ইসলাম (৩২)।

এ চক্রের মূলহোতা শফিকুল ইসলাম ওরফে আনিস পুলিশকে জানায়, তারা দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা থেকে কাঁচামাল এনে বিভিন্ন নামিদামি কোম্পানির বহুল ব্যবহৃত নকল ওষুধ তৈরি করতো। পরবর্তীতে তারা তৈরি নকল ওষুধ বিভিন্ন ফার্মেসীতে পৌঁছানোর পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন স্থানেও সরবরাহ করতো।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন, রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) পুলিশ কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক।
আরএমপি ডিবি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও জানান, পুলিশের কাছে গোপন সংবাদ ছিলো রাজশাহীতে নকল ওষুধ তৈরি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে। এই বিষয়ে তারা তথ্যের সত্যতা ও নকল ওষুধের কারখানার অনুসন্ধান করছিলো।

এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ ভুক্তোভোগীদের মাধ্যমে জানতে পারে বাজারে নকল ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে। ওষুধ খেয়ে রোগীরা সুস্থ না হয়ে বরং আরও অসুস্থ হচ্ছে। এরপর নগরীর চন্দ্রিমা থানার ভদ্রা এলাকার শফিকুল ইসলাম ওরফে আনিছের বসত বাড়িতে বিভিন্ন প্রকার নামিদামি ওষুধ কোম্পানির মোড়কে নকল ওষুধ প্রক্রিয়াজাত করে রাজশাহী মহানগরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ডিলারদের মাধ্যমে বাজারজাত করছেন বলে জানতে পারে পুলিশ।

এ সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার রাতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে নকল ওষুধ কারখানা থেকে ফয়ার কোম্পানি, এস.বি-ল্যাবরেটরীজ কোম্পানি, নাভানা কোম্পানি, রিলায়েন্স কোম্পানি ও স্কয়ার কোম্পানির লোগো ব্যবহার করা বিভিন্ন প্রকাশ ওষুধ জব্দ করা হয়।

পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক জানান, এসব ওষুধ বাজার থেকে উত্তোলনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এর সঙ্গে আরও কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

SHARE