বিএনপিতে কোন্দল, সুবিধাজনক অবস্থানে শাহরিয়ার

172

বাঘা প্রতিনিধি : আসন্ন একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এবার রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এই দল থেকে চারজন মনোনয়ন প্রত্যাশী থাকলেও মনোনয়ন পান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তিনি ২৮ নভেম্বর দলীয় প্রার্থী হিসাবে  উপজেলা সহকারি রির্টানিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

অপরদিকে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি থেকে পৃথক ব্যানারে নিজ কর্মী সমর্থকদের সঙ্গে করে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন তিন প্রার্থী। এদের মধ্যে চারঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও চারঘাট বিএনপির সভাপতি আবু সাইদ চাঁদ কারাগারে থাকায় তার পক্ষে মনোনয়ন দাখিল করেছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। একই সাথে জাসাস কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা ও সাবেক বাঘা উপজেলা বিএনপির সভাপতি নুরুজ্জামান খান মানিক এবং জেলা বিএনপির সদস্য বজলুর রহমান নিজ কর্মী-সমর্থকদের সাথে করে মনোনয়ন জমা দেন। এর ফলে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে দীর্ঘদিনের অভ্যন্তরীণ কোন্দল এবং বিভক্তির বিষয়টি আবারও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে।

বিএনপির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নেতা বলেন, কোন কারণে যদি আবু সাইদ চাঁদ ভোট করতে ব্যর্থ হয় তাহলে বাকি দু’জনের মধ্য থেকে ১ জনকে চূড়ান্ত করা হবে। তবে কে হবেন চূড়ান্ত তার আগেই কোন প্রার্থীর লোকবল বেশি এবং কার সাথে কোন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত রয়েছেন সে বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে বাঘা বিএনপিতে। এরই মধ্যে নেতাদের ভিতরে দূরত্ব বেড়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির আরেক সিনিয়ার নেতাসহ কয়েকজন তৃণমূল নেতাকর্মী বলেন, আমরা দশ বছরে নিজেরা এক হতে পারছি না। আওয়ামী লীগ একক প্রার্থী চূড়ান্ত করে গণজোয়ার সৃষ্টি করছে সেখানে আমাদের প্রার্থী তিনজন। এ ঘটনা থেকে এটাই প্রতিয়মান হয় যে, আমাদের মধ্যে কোনো একতা নেই। আমাদের নিজেদের ভুলে আমরা আবারও এই আসনটি হারাবো।

তবে এদিক থেকে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এখানে মনোনয়ন বঞ্চিত তিন নেতা সাবেক বাঘা পৌর মেয়র আক্কাস আলী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. লায়েব উদ্দিন লাভলু এবং সাবেক সাংসদ রায়হানুল হক রায়হান মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ফিরে এলেও দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে তাদের কোন প্রচারণা নেই। কেউ কোনো মনোনয়ন দাখিল করেননি।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল বলেন, একটা বড় দল থেকে অনেকেই মনোনয়ন চাইতে পারে। তবে দল বুঝতে পারেন কে অধিক যোগ্য। সেই বিবেচনায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম যোগ্য প্রার্থী। গত ১০ বছরে তার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড  চোখে পড়ার মতো। অনেক সাধারণ মানুষের মন জয় করেছেন তিনি। আমরা আশা করছি, জনগণ নৌকার বৈঠা আবারও তার হাতে তুলে দেবেন।

SHARE