রাসিক মেয়রের সাথে ইউসিমাস জিনিয়াস বাংলাদেশের চেয়ারম্যানের সাক্ষাৎ

18

স্টাফ রির্পোটার : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটনের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন ইউসিমাস জিনিয়াস বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও ন্যাশনাল ফ্রানচাইঞ্জি মোঃ আহসান করিব, ব্যবস্থাপনা পরিচালক জান্নাতুল ফেরদৌসী এবং রাজশাহী বিভাগীয় জেনারেল ম্যানেজার মোঃ ইমামউদ্দীন আহমেদ।

মঙ্গলবার দুপুরে নগর ভবনে সাক্ষাৎকালে মেয়রকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন ইউসিমাস জিনিয়াস বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও ন্যাশনাল ফ্রানচাইঞ্জি মোঃ আহসান করিব।

এ সময় মেয়র বলেন, বর্তমান এই মহামরী পরিস্থিতিতে এবং ভবিষ্যত উন্নয়নের লক্ষ্যে কিভাবে আমরা একটা শক্তিশালী মেধাবী জাতি হিসাবে সারা বিশে^র দরবারে পরিগণিত হতে পারি সেটা আমাদের সব সময় চেষ্টা রাখতে হবে। বিপদ মহামারি সব কিছু তার প্রাকৃতিক নিয়ম অনুসাওে চলে এবং এই পরিস্থিতিতে আমাদের থেমে গেলে চলবে না। দেশ, জাতি এবং দক্ষ মেধাবী মানবসম্পদ গঠনের লক্ষ্যে আমাদের অবশ্যই সবর্দা অগ্রনী ভূমিকা রাখতে হবে।

এ সময় মেয়র ইউসিমাসের কার্যক্রমের উন্নয়নের লক্ষ্যে এবং শিক্ষানগরীতে মেধারপূর্ণ বিকাশ ঘটাতে সার্বিক সহযোগিতার জন্য আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, বিশ্বের সর্ববৃহৎ ও সর্বশ্রেষ্ঠ বিজ্ঞান ভিত্তিক আর্ন্তজাতিক শিশু মেধা বিকাশ প্রতিষ্ঠান“ইউসিমাস”। এটি বিশ্বেও একটি স্বনামধন্য শিশু মেধা বিকাশ প্রতিষ্ঠান হিসেবে সফলভাবে পরিচালিত হচ্ছে ৮০টিরও অধিক দেশে।

“ইউসিমাস”মালয়েশিয়ার উদ্যোগে প্রতি বছর ইউসিমাস এ্যাবাকাস ও মেন্টাল এ্যারিথমেটিক আন্তর্জাতিক গণিত প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের ক্ষুদে শিশুরা বিশ্বেও অন্যান্য দেশের ছাত্রছাত্রীদের সাথে প্রতিযোগিতা কওে বাংলাদেশের জন্য সুনাম অর্জন করে। এই প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৮০টিরও বেশি দেশ থেকে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী অংশগ্রহণ করে। মাত্র ৮ মিনিটে ২০০ অংকের সমাধান করে সকলকে তাক লাগিয়ে দেয় তারা। প্রতি বছর বিশ্ব মঞ্চে মেধার এই প্রতিযোগিতায় স্বাক্ষর রেখে চলছে ইউসিমাস বাংলাদেশের ক্ষুদে জিনিয়াসরা। বিশ্ব আসরে তাদের এই গৌরবোজ্জ্বল সাফল্য অর্জনে গর্বিত হয় গোটা জাতি প্রতিবছর।

উল্লেখ্য যে, তথ্য-প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞজনাব মোঃ আহসান কবির ২০০৮ সাল থেকে ইউসিমাস বাংলাদেশ কার্যক্রমের সাথে সংযুক্ত। তিনি ২০১৩ সালে ইউসিমাস বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও ন্যাশনাল ফ্রানচাইজি হিসেবে দায়িত প্র্প্তাহন। তিনি একজন কানাডিয়ান নাগরিক এবংআইটি বিশেষজ্ঞ হওয়া সত্ত্বেও কোমলমতি শিশুদের নিয়ে আধুনিক দেশ ও মেধা সমৃদ্ধ জাতি গঠনে অসামান্য ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন।

SHARE