তাদের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতাটা দারুণ -সাবেরী আলম

13

অনলাইন ডেস্ক : নাটক, সিনেমা, বিজ্ঞাপন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন গুণী অভিনেত্রী সাবেরী আলম। পহেলা এপ্রিল ওটিটি প্ল্যাটফর্ম জি ফাইভে মুক্তি পেয়েছে তার নতুন ওয়েব ফিল্ম ‘যদি কিন্তু তবুও’। এটি পরিচালনা করেছেন শিহাব শাহীন। এরইমধ্যে ছবিটিতে সাবেরীর অভিনয় প্রশংসা কুড়াচ্ছে। সব মিলিয়ে কেমন আছেন? এ অভিনেত্রী বলেন, বেশ ভালো আছি। তবে ব্যস্ততার মাঝেই সময় যাচ্ছে। সদ্য মুক্তি পেয়েছে আপনার অভিনীত ‘যদি কিন্তু তবুও’ ছবিটি। এ সিনেমাটি দর্শক কেন দেখবেন? সাবেরী আলম উত্তরে বলেন, এটা বলাই বাহুল্য যে শিহাবের কাজ সবসবময়ই মানসম্পন্ন হয়।
নতুন করে বলার কিছু নেই। রোমান্টিক-কমেডিতে অত্যন্ত দক্ষ তিনি। যেহেতু একটা নিরেট প্রেমের গল্প, এটা একটা বয়সের মানুষের জন্য বেশ আকষর্ণীয় হবে। এই সিনেমায় পারিবারিক বন্ধন এবং বন্ধুত্ব চমৎকারভাবে এসেছে। গল্পটির সাথে কোনো না কোনো জায়গায় কেউ না কেউ কোনো না কোনো বয়সে মেলাতে পারবে। আমি এখন যে বয়সে আছি, আমি মা হিসেবে মেলাতে পারবো। যখন তরুণী ছিলাম তখন যে আবেগ ছিল, সেটার সাথেও মেলাতে পারবো। এখানে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল? সাবেরী আলম বলেন, আমার যে সহশিল্পী ছিলেন তারা সবাই চমৎকার অভিনেতা-অভিনেত্রী। তাদের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতাটা দারুণ। বিশেষ করে সহশিল্পী হিসেবে অপূর্ব দুর্দান্ত। নুসরাত ফারিয়া কঠোর পরিশ্রমী। নিশ্চয়ই জানেন, শুটিংয়ের সময় অনেক বাধা এসেছে। শিহাব অসুস্থ হয়ে যায়। শুটিংয়ের পর অপূর্ব ও ফারিয়ার করোনা হয়। তারপর দীর্ঘদিন শুটিং বন্ধ ছিল। দীর্ঘ যাত্রা। যেটা অনেক আগেই শেষ হওয়ার কথা ছিল। আমি খুব করে চাই এই সিনেমাটা মানুষ দেখুক। কারণ প্রত্যেকে প্রচুর পরিশ্রম করেছে। অনেক দর্শকের অভিযোগ এখন নাটক- সিনেমায় শুধুই প্রেম দেখানো হয়। ভিন্নধর্মী গল্পের অভাব। এ ব্যাপারে কী বলবেন? সাবেরী আলম বলেন, হ্যাঁ। এটা সত্য যে ভিন্নধর্মী গল্প আমরা কম পাচ্ছি। তবে যে অভাবটির কথা বলছেন সে ব্যাপারে নির্মাতারা সচেতন হচ্ছেন। পরিবারকে জড়িত করার দিকে তারা গুরুত্ব দিচ্ছেন।

SHARE