টি-টোয়েন্টি বলেই আশাবাদী হতে চান মাহমুদুল্লাহ

23

স্পোর্টস ডেস্ক : ৩-০ তে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ বাংলাদেশ দল। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে জয় দিয়ে ইতিহাস পরিবর্তনে ব্যর্থ তামিম ইকবালের দল। তবে এখনো সুযোগ আছে। আজ থেকে শুরু হচ্ছে ৩ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। নিজেদের সেরাটা দিতে পারলে হয়তো মিলবে অধরা জয়। কিন্তু দেশে কি বিদেশে এখন পর্যন্ত এই ফরম্যাটে ৭ বারের দেখায় ব্ল্যাকক্যাপসদের বিপক্ষে একবারও জিততে পারেনি টাইগাররা। তবুও আজ হ্যামিল্টনে সকাল সাতটায় শুরু হওয়া এই ম্যাচে শূন্য থেকেই ঘুরে দাঁড়াতে চান অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তার এই আত্মবিশ্বাসের কারণটাও জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যমকে।
তার মতে টি- টোয়েন্টিতে ছোট-বড় দল বলে কিছু নেই। নিজেদের দিনে যে কেউ জিততে পারে। তিনি বলেন, ‘ওয়ানডে সিরিজে আশানুরূপ পারফর্ম করতে পারিনি, এ কারণে আমরা আশাহত। তবে টি-টোয়েন্টি এমন একটা ফরম্যাট যেখানে বড় দল-ছোট দল বলতে কিছু নেই। র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল হোক বা নয়-দশ নম্বর দল হোক, নির্দিষ্ট দিনে যদি কোনো দল ভালো পারফর্ম করে, এক-দুইজন খেলোয়াড় ভালো পারফর্ম করে, দল হিসেবে যদি ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং ঠিকমতো করতে পারি তাহলে যেকোনো দলকে হারাতে পারবো। এটা আমাদের বিশ্বাস। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটটাই এমন। এটা একটা দিনের খেলা। যে ওইদিন ভালো করবে তাদের পক্ষেই ভালো করা সম্ভব।’

ওয়ানডেতে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার দুটি বড় কারণ বাজে ব্যাটিং ও ফিল্ডিং। তিন ম্যাচেই এই দুই বিভাগের ব্যর্থতা ফুটে উঠেছে দারুণভাবে। মাহমুদুল্লাহ নিজেদের ব্যাটিং ব্যর্থতা নিয়ে বলেন, ‘ব্যাটিং নিয়ে আমরা যে রকম আশা করেছিলাম ওরকম পারফর্ম করতে পারিনি। বোলারদের জয়ের রসদ এনে দিতে ব্যাটিং ইউনিটকে আরো ভালো পারফর্ম করতে হবে। বোলাররা খুব ভালো ছন্দে আছে। আমাদের যে বোলিং ইউনিট আছে- মেহেদী, নাসুম, মিরাজ- এ ছাড়াও সব ফাস্ট বোলাররা। আমাদের বোলিং অ্যাটাক তাদের আটকানোর জন্য যথেষ্ট ভালো। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে নিউজিল্যান্ড খুব ভালো ক্রিকেট খেলেছে। কিন্তু আগেও বললাম- ‘টি-টোয়েন্টিতে যে কারও হয়ে যেতে পারে। আমাদের সব জড়তা কাটিয়ে এবং এই তিন ম্যাচের ফলাফল ভুলে এগিয়ে যেতে হবে। তবে হ্যাঁ যে ভুলগুলো করেছি সেটা মাথায় রাখতে হবে।’

সেই সঙ্গে টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক জানিয়েছেন- ওয়ানডে সিরিজের ফলাফল তাদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব যাতে না ফেলে সেদিকে দলের ক্রিকেটারদের খেয়াল রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, ‘ওয়ানডে সিরিজের ফলাফল যেন আমাদের এই খেলায় নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে, সেজন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত রাখতে হবে। জয়ের বিকল্প নেই, অন্য কোনো পথ নেই। নিউজিল্যান্ডকে যদি হারাতে চান তাহলে যে চ্যালেঞ্জ নিতে হয় তার জন্য আমরা মুখিয়ে আছি।’ এ ছাড়াও ওয়ানডে সিরিজে ফিল্ডিং ব্যর্থতা থেকেও বের হতে চান রিয়াদ। তিনি বলেন, ‘আমরা জানি এখানকার কন্ডিশন বরাবরই আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। ওয়ানডে সিরিজেও আমরা দেখেছি। তারা তাদের কন্ডিশনকে অনেক ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছে। ব্যাটিং ইউনিট হিসেবে আমরা ভালো করতে পারেনি। যদিও আমাদের বোলাররা ভালো পারফর্ম করেছে। কিন্তু কিছু ভুল ফিল্ডিংয়ের কারণে ফলাফল পক্ষে আনতে পারেনি। টি-টোয়েন্টিতে কোনো ধরনের জড়তা ছাড়া ভয়ডরহীন ক্রিকেট যদি আমরা খেলতে পারি তাহলে ফল আমাদের পক্ষে নিয়ে আসা সম্ভব।’

ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল খেলবে না টি-টোয়েন্টি সিরিজে। তার সঙ্গে আজ দেশে ফিরে আসছেন ইনজুরি আক্রান্ত তরুণ পেসার হাসান মাহমুদও। তামিম না থাকায় দলের ব্যাটিং লাইন আপে পরিবর্তন আসবে। ওপেনিংয়ে নাঈম শেখ ও সৌম্য সরকারকে দায়িত্ব নিতে হবে। এ ছাড়াও লিটন দাস, মুশফিকুর রহীম, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোহাম্মদ মিঠুনদের সামলাতে হবে মিডল অর্ডার। অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ লেজের দিকের ব্যাটিংয়ে শক্তি বাড়াবেন। এ ছাড়াও মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, রুবেল হোসেনরা হবে বোলিং বিভাগের অন্যতম ভরসা। এখন দেখার বিষয় ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে কতোটা ঘুরে দাঁড়াতে পারে বাংলাদেশ!

SHARE