জেল হত্যা দিবস স্মরণে নগর আ.লীগের স্মরণ সভা

39

স্টাফ রিপোর্টার : ৩রা নভেম্বর জেল হত্যা দিবস স্মরণে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে সাহেব বাজার বড় মসজিদ চত্বরে আয়োজিত স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামানের পুত্র রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

স্মরণ সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশকে পাকিস্তানে পরিণত করতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের এবং ৩রা নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করে স্বাধীনতাবিরোধী চক্র। বঙ্গবন্ধু পরিবারের কেউ যাতে আগামীতে বাংলাদেশে নেতৃত্বে আসতে না পারে সেজন্য, শিশুপুত্র শেখ রাসেলকেও বাঁচতে দেয়নি। যেই চক্র বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছিল, সেই চক্রই জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সৈনিকদের হত্যা করে।

এসএম কামাল হোসেন আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। কিন্তু আজও ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত থেমে নেই। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে তাঁর সুযোগ্যকন্যা শেখ হাসিনার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। যদি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চান, যদি শহীদ কামারুজ্জামানের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চান, আমি রাজশাহীর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বলছি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে যারা কাজ করবে, তাদের রাস্তায় আনতে দিবেন না।

স্মরণ সভায় সভাপতির বক্তব্যে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আজকের এই দিবসটি আমার ও আমার পরিবারের কাছে ভিন্নমাত্রার। কারণ জাতীয় চার নেতার মধ্যে একজন আমার জন্মদাতা পিতা শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান। যে বয়সে সন্তানেরা পিতা-মাতার আশ্রয়ে থাকে, সেই বয়সে আমি আমার পিতাকে হারিয়েছি। সেই কারণে দিনটি আমাদের কাছে বেদনাবিধুর। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যাকারীদের অনেকের বিচার কার্যকর করা হয়েছে। জাতীয় চার নেতার খুনিদের অনেকে পলাতক আছে। তারা বিশে^র যেখানে থাকুক না কেন, তাদের বাংলার মাঠিতে এনে বিচার কার্যকর করা হবে, এটি শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার, আমরা সেটা দেখে যেতে চাই।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারের সঞ্চালনায় সভায় আরো বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আখতার জাহান, রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মনসুর রহমান, সংরক্ষিত আসনের সাংসদ আদিবা আঞ্জুম মিতা, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজ উদ্দিন মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারা প্রমুখ।

সভায় শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামানের পরিবারের সদস্য মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, সৈয়দ শাহাদত হোসেন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকার, সাবেক উপ-প্রচার সম্পাদক মীর ইশতিয়াক আহম্মেদ লিমনসহ মহানগর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ অংশ নেন।

SHARE