দুর্গাপুরে দশ বছরে প্রাথমিক শিক্ষায় ব্যাপক উন্নয়ন

163

দুর্গাপুর প্রতিনিধি : রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলায় গত দশ বছরে প্রাথমিক শিক্ষায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। সেই সাথে অর্জিত হয়েছে জাতীয় পর্যায়ে দেশ সেরার খেতাব। জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম হওয়ার গৌরব অর্জনের গন্ডি পার হয়ে জাতীয় পর্যায়েও দেশ সেরার গৌরব অর্জনই বলে দেয় এ উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষার প্রাথমিক হালচাল।
বর্তমানে এ উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের আধুনিক পদ্ধতিতে শিক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে পাঠদান এবং শিশুরা আধুনিক ও প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে নিজেদের যোগ্য করে গড়ে তুলছে। প্রতিটি বিদ্যালয় সবুজায়নের লক্ষ্যে মাঠ আঙ্গিনায় পর্যাপ্ত পরিমাণ বৃক্ষের চারা রোপণ কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি বিদ্যালয়ের শ্রেনী কক্ষ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থীদের নানা ভাবে উদ্বুদ্ধ করছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।
ইতিমধ্যে বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীর ছবিসহ আইডিকার্ড ও ডাটাবেজ প্রণয়নসহ প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাপনা এবং অবকাঠামো নির্মাণ নিশ্চিত করার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ঝরে পড়া ও স্কুল বর্হিভূত শিশুদের বিদ্যালয়ে আনা এবং তাদের প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণের জন্য সম্ভাব্য সকল উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সকল শিশুর জন্য সমতাভিত্তিক ও মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নের পাশাপাশি স্থানীয় পর্যায়ে উদ্ভাবনী কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে এ উপজেলায়।
উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান সরকারের শাসনামলে ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক সমাপনী (পিএসসি) পরীক্ষায় শতভাগ সাফল্যের সাথে উপজেলা ভিত্তিক ও জেলা পর্যায়ে প্রথম স্থান অর্জন করে দুর্গাপুর উপজেলা। তারপর থেকে এ উপজেলায় প্রাথমিক শিক্ষায় সাফল্যের ধারাবাহিকতা এখনো অব্যাহত আছে। এ উপজেলায় সকল সরকারী, রেজিষ্টার্ড ও বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলে প্রাথমিক শিক্ষায় পাশের হার ৯৯.৮৫।
জানা গেছে, দুর্গাপুর উপজেলার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে গত বছরের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষায় ৩ হাজার ২২৫ জন শিক্ষার্থী ডিআর ভূক্ত থাকলেও সকল বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে মোট ৩ হাজার ১৯৯ জন পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে বালক ১ হাজার ৫৭৭ জন ও বালিকা ১ হাজার ৬৬২ জন। মোট জিপিএ ৫ পেয়েছে ৪০৫ জন। এর মধ্যে বালক ১৬৫ জন এবং বালিকা ২৪০ জন।
উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, দুর্গাপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষায় জাতীয় পর্যায়ে অবদান রেখে চলেছে। প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় ২০০৯ সালে ৯৯.২৭ ভাগ পাশ করেছে। জাতীয় পর্যায়ে রাজশাহী বিভাগে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছিলো ওই বছর। ২০১০ সালের পরীক্ষায় পাশ করেছিলো ৯৯.৮৩ ভাগ এবং রাজশাহী বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করেছিলো। তারই ফলশ্রুতিতে ২০১১ সালের সমাপনি পরীক্ষাতেও শতভাগ সাফল্য সহ জাতীয় পর্যায়ে প্রথম হওয়ার গৌরব অর্জন করে এ উপজেলা।
তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের সময় বছরের প্রথমদিনে এক সাথে সব গুলো বই বিতরন, মানসম্মত শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলতে বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর স্থাপন, গরীব শিশু শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদান, রুপকল্প ২০২১ ও ভিশন ২০৪১ অর্জনে ইন্টারনেট সংযোগ সহ বিদ্যালয় গুলোতে কম্পিউটার প্রদানসহ বর্তমান সরকারের নানামূখী উদ্যোগের কারনে এ উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষায় এই সাফল্য অর্জন সম্ভব হযেছে। সরকারের গৃহিত এসব কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন ও শিশু শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার গুনগত মান উন্নয়নের জন্য দুর্গাপুর উপজেলা প্রশাসন সব রকম প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

SHARE