বিদ্যুতের খুঁটিতে ডিশ তার জটলা!

310

স্টাফ রিপোর্টার : বিদ্যুতের খুঁটি জুড়ে তারের জটলা। বিদ্যুতের তারের চেয়ে ডিশ লাইনের (ক্যাবল নেটওয়ার্ক) তারই দখল করেছে খুঁটি। ডিশ লাইনের কর্মীরা সংযোগ দিয়ে অপ্রয়োজনীয় তারগুলো রেখে যায় খুঁটিতে। বিদ্যুৎ ও ডিশের তার মিলে মিশে একাকার হয়ে গেছে। অতিরিক্ত তারে ঝুঁকি বাড়ছে দুর্ঘটনার। বিদ্যুৎ খুঁটিগুলোতে প্রতিনিয়তই বাড়ছে তারের জটলা। ডিশ লাইনের সংযোগ তারের জটের কারণে ঢাকা পড়ে যাচ্ছে বিদ্যুৎ সংযোগ তারগুলো। নগরীর সব এলাকার সড়কগুলোতে বিদ্যুতের খুঁটিতে খুঁটিতে রয়েছে ডিশের তারের জটলা। মূল সড়ক কিংবা গলি সব জায়গাতে তারের জটলা চোখে পড়ে। আবার ডিশ লাইনের বক্সের ভেতরে দেখা যায় পাখির বাসা। এই বাসাতে প্রায় সর্ট সাকির্টে আগুন লাগে। সড়কগুলোর বিদ্যুৎ খুঁটিতে ডিশ লাইনের তার অপসারণ করতে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানীর (নেসকো) কোনো পদক্ষেপ নেই। নেসকো বলছে, তারা অল্প দিন আগে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কাছে থেকে দায়িত্ব নিয়েছে। বিষয়গুলো তারা গুরুত্বের সাথে দেখবেন।
বৈদ্যুতিক খুঁটিতে ডিশ লাইনের তার ঝোলানোর কারণে (নেসকো) বিদ্যুৎ লাইনের সংযোগ মাঝে মাঝে বিছিন্ন হওয়ার ঘটনা ঘটে। বৃষ্টি বা ঝড়ের পর বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন হওয়ার একটি বড় কারণ বলে জানান নেসকো কর্তৃপক্ষ। নেসকোর এক প্রকৌশলী বলেন, বৈদ্যুতিক খুঁটির সঙ্গে ডিশ লাইনের সংযোগ দেয়া সম্পূর্ণ অবৈধ। কারণ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের খুঁটির সঙ্গে সরকারি বিদ্যুতের তার ছাড়া অন্য কোনো তারের সংযোগ দেয়া যাবে না। যারা ডিশ লাইনের ব্যবসা করছেন তারা নিজের ইচ্ছাতে বিদ্যুতের খুঁটি ব্যবহার করে ডিশ লাইনের সংযোগ দিচ্ছেন। ডিশ সংযোগকারীদের নিষেধ করা হলেও তারা কোনো তোয়াক্কা করে না। অন্যদিকে বিদ্যুতের খুঁটি ব্যবহার করে এসব তার ছড়িয়ে পড়েছে নগরী জুড়ে। প্রতিটি খুঁটির সঙ্গে পাকিয়ে তৈরি হয়েছে তারের কু-লি। ঝুলে থাকা এসব তারের মাধ্যমেই মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হওয়াসহ নানা রকম দুর্ঘটনা ঘটছে। জঞ্জালের মতো এসব তার নষ্ট করছে রাজশাহীর সৌন্দর্য।
বর্তমানে নগরীতে ডিশ সংযোগ দানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রায় পুরোটাই বিদ্যুতের খুঁটি নির্ভর। বিদ্যুৎ বিভাগসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থতার কারণেই রাস্তায় ঝুলন্ত তার সরানোর কাজে বিলম্ব হচ্ছে। ফলে বিপজ্জনক তারের জট থেকে নগরবাসী মুক্তি পাচ্ছে না। নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানীর (নেসকো) তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হাসিনা দিলরুবা বলেন, ডিশ লাইনের (ক্যাবল নেটওয়ার্ক) মালিকরা নেসকোর অনুমতি ছাড়াই বিদ্যুতের খুঁটি ব্যবহার করছেন। এই বিষয়ে নেসকোর সভায় আলোচনা করা হবে। এছাড়া ডিশ লাইনের ফলে ছোট-বড় দুর্ঘটনাগুলো ঘটছে বলে তিনি জানান। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক বলেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশন ডিশ ব্যবসায়ীরা অনুমতি নেয়নি। অনেক সময় দেখা যায়, বিদ্যুৎ খুঁটির বাল্ব থাকে না। তাদের সঙ্গে আলোচনা করে শৃংঙ্খলায় আনা হবে। ডিশ লাইনের (ক্যাবল নেটওয়ার্ক) ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম তজু বলেন, ‘তারা বিদ্যুৎ অফিসকে বিল দেন। তবে বর্তমানে ডিশ লাইনের কি অবস্থা তার জানা নেই। তিনি এখন এই ব্যবসা দেখাশোনা করেন না। এটি তার পার্টনাররা দেখা শোনা করেন।

SHARE