পদ্মায় কমছে পানি, বাড়ছে ভাঙন

171

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীর পদ্মা নদীতে পানি কমার সাথে সাথে ভাঙতে শুরু করেছে পদ্মার পাড়। পবার হরিপুর ইউনিয়নের প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকায় তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে। গত ১৫ দিনে বিলীন হয়েছে প্রায় ৫০ বিঘা ফসলি জমি। হুমকির মুখে পড়েছে বেড়িবাঁধ। জমি হারিয়ে এখন বসতবাড়ি হারানোর চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী।

প্রতিবছরই পদ্মার পানি কমার সময় নদী ভাঙন দেখা যায়। এবার পানি কমায় তীব্র রূপ নিয়েছে ভাঙন। অনেক এলাকা এরই মধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে পবার হরিপুর ইউনিয়নের গহমাবোনা, বাগানপাড়া, খোলাবোনা, বেলুয়া, বেড়পাড়া, কসবা ও মদনপুর এলাকাজুড়ে চলছে পদ্মার ভাঙন। এরই মধ্যে নদী গর্ভেবিলীন হয়েছে ফসলি জমি।

ওই এলাকার ভাঙন কবলিত জমির মালিক ইউপি সদস্য আকবর আলী ও মোমিনুল ইসলাম বলেন, আগে পদ্মায় পানি বাড়লে ভাঙন দেখা যেত। কিন্তু কয়েক বছর থেকে বাঁধের পাশে ড্রেজারে বালি উত্তোলন করায় আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তি নদীতে হারিয়ে যাচ্ছে। প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পদ্মার এই ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিনই নদী গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের বেঁচে থাকার অবলম্বন।

ইউপি সদস্য আকবর আলী জানান, শুধুমাত্র বাগানপাড়া এলাকায় জমি হারিয়ে নিঃস্ব হতে যাচ্ছেন সাজ্জাদ, মুকুল, রিয়াজুল, আলহাজ্ব আবদুস সাত্তার, হযরত আলীসহ প্রায় শতাধিক মানুষ। মোমিনুল ইসলাম বলেন, ওই এলাকায় ৬-৭ বছর যাবত বাঁধের পাশে থেকে বালি ও ভরাটবালি উত্তোলন করায় পানি কমার সাথে সাথে তাদের জমি নদীগর্ভে বিলিন হচ্ছে বলে তিনি জানান।

হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান বজলে রেজবি আল হাসান মুঞ্জিল জানান, দীর্ঘদিন ধরে ইউনিয়নের ৫, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের নদী তীরবর্তী বেশীর ভাগ অংশ পদ্মার ভাঙ্গনে বিলিন হয়ে গেছে। আবার নতুন করে পদ্মায় পানি কমে যাওয়ায় দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। গত ১৫ দিনে এখানে প্রায় ৫০ বিঘা জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে।

এই তিন ওয়ার্ডে প্রায় ১৫ হাজার লোকের বসবাস। এভাবে জমি হারাতে থাকলে হরিপুর ইউনিয়নের এই ওয়ার্ডগুলোর অস্তিত্ব থাকবে না। ভাঙ্গনের বিষয়টি তিনি জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানিয়েছেন বলে জানান।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেসুর রহমান বলেন, চরাঞ্চলের এই ভাঙ্গনের বিষয়টি তারা জানেন। পানি কমার সময় এমন ছোটখাট ভাঙন দেখা দেয়। এখনও কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তাছাড়া এতে বাঁধের কোন ক্ষতি হবে না।

SHARE