পিইসিতে অংশ নেওয়ায় ৬০ ভুয়া পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার

118

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষায় অবৈধভাবে অংশ নেওয়ায় নগরীর কয়েরদাড়া আরবান স্লাম আনন্দ স্কুল ও মালদা কলোনি আনন্দ স্কুলের ৬০ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সেইসাথে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে বহিরাগত শিক্ষার্থী এনে নিজের প্রতিষ্ঠানের নামে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে লিখিতভাবে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুস সালাম।
জানা গেছে, রোববার পিইসি পরীক্ষার শেষ দিনে গণিত পরীক্ষা ছিল। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত পরীক্ষার সময় ছিল। আরবান স্লাম আনন্দ স্কুল ও মালদা কলোনী আরবান স্লাম আনন্দ স্কুলের ৯৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৬০ জন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষের জেরার মুখে নিজেরাই স্বীকার করেছে যে তারা টাকার বিনিময়ে আনন্দ স্কুলের হয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিল। ভুয়া শিক্ষার্থী ধরা পড়ার পরে তাদের স্কুলের শিক্ষকেরাও এক পর্যায়ে স্বীকার করেছেন যে, প্রকল্প চালু রাখতে ভুয়া পরীক্ষার্থী দেখানো হয়েছে।
রাজশাহী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মাহফুজা নাসরীন জানান, তিনি গত বৃহস্পতিবারই বিষয়টি টের পেয়ে শিক্ষকদের এ বিষয়ে নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছিলেন। রবিবার পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর দেখা যায়, একটি মেয়ের প্রবেশপত্রে কোনো ছবি নেই। তাকে বাইরে নিয়ে এসে জিজ্ঞাসা করা হলে সে স্বীকার করে যে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে। আনন্দ স্কুলে শিক্ষার্থী কম তাই তাকে ওই স্কুলের পরীক্ষার্থী হিসেবে নিয়ে আসা হয়েছে। পরে সন্দেহজনক ৬০ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
রাজশাহী জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুস সালাম বলেন, এই স্কুল দুইটি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের আনন্দ স্কুল অর্থাৎ রিচিং আউট অব স্কুল চিলড্রেন (রস্ক) প্রকল্পের অধীনে চালু আছে। তবে প্রকল্প ঠিকিয়ে রাখার জন্য এই দুই স্কুলের ৯০ জন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে অন্য প্রতিষ্ঠান থেকে বহিরাগত ৬০জন শিক্ষার্থীকে রাজশাহী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে গণিত পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য ব্যবস্থা করেছে নগরীর কয়েরদাড়া আরবান স্লাম আনন্দ স্কুল ও মালদা কলোনি আনন্দ স্কুলের শিক্ষকরা।
তিনি আরও বলেন, অন্য স্কুলের শিক্ষার্থীদের অর্থের বিনিময়ে এই স্কুল দুইটির শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঢাকায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে সোমবার আবেদন করা হবে। যাতে করে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

SHARE