চুরি হওয়া শিশুর হদিস মেলেনি তিন দিনেও

অনলাইন ডেস্ক : গাজীপুর মহানগরের বাসন থানা এলাকার একটি বসত ঘর থেকে আট মাস বয়সী শিশু চুরি হওয়ার তিন দিন হলেও তার হদিস মেলেনি। এ ঘটনায় প্রতিবেশী ভাড়াটিয়া মোছা. আইরিনকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন শিশুটির বাবা মোক্তার হোসেন। মামলা হলেও শিশুটিকে এখনো উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

গত বুধবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে গাজীপুর মহানগরের বাসন থানার নাওজোড় এলাকায় ফরিদ মিয়ার ভাড়া বাসা থেকে শিশুটি চুরি হয়ে যায়।

চুরি যাওয়া শিশু আব্দুল্লাহ নোমান চাঁদপুর জেলার হাইমচর থানার কমলাপুর গ্রামের মোক্তার হোসেনের (৪৪) ছেলে। তিনি ৬ বছর থেকে পরিবার নিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে স্থানীয় একটি কারখানায় পোশাকশ্রমিক হিসেবে কাজ করেন।

আরও পড়ুনঃ   আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবস পালনে আরএমপি’র বর্ণাঢ্য আয়োজন

মামলা সূত্রে জানা গেছে, মোক্তার হোসেন নাওজোড় এলাকার বাসা ভাড়া নিয়ে ৬ বছর ধরে আছেন। গত ছয় মাস আগে তাদের বাসার পাশের একটি কক্ষ ভাড়া নেন আইরিন ও তার স্বামী। বুধবার (৩ এপ্রিল) তার স্ত্রী ও আট মাস বয়সী শিশু আব্দুল্লাহ নোমানকে ভাড়া বাড়িতে রেখে মোক্তার হোসেন কাজে চলে যান। ওই দিন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শিশু আব্দুল্লাহ্ নোমানকে গোসল করান। গোসল শেষে কক্ষের খাটের ওপর ছেলেকে শুইয়ে রেখে মা মনিরা আক্তার রুমা কাপড় ধোয়ার জন্য যান। কিছু সময় পর ঘরে ফিরে ছেলেকে দেখতে না পেয়ে আশপাশে খোঁজ করতে থাকেন। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে জানতে পারেন, প্রতিবেশী আইরিন আব্দুল্লাহ নোমানকে অজ্ঞাত জায়গায় নিয়ে গেছে।

আরও পড়ুনঃ   সোনার দামে রেকর্ড, ভ‌রি‌ এক লাখ ১৫ হাজার ৮২৪ টাকা

এ বিষয়ে জানতে শনিবার দুপুরে শিশুর বাবা মোক্তার হোসেনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হয়। এ সময় তিনি কান্নারত অবস্থায় বলেন, ‌‘আমাদের কলিজার ধন চুরি হয়ে গেছে। ওকে না পেয়ে ওর মা পাগল প্রায় অবস্থায় বিলাপ করে কাঁদছে। মামলা করলেও পুলিশ এখনো ছেলের সন্ধান দিতে পারেনি।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের বাসন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবু সিদ্দিক বলেন, ঘটনার পরপরই বাসন থানা পুলিশের একাধিক টিম শিশুটিকে উদ্ধারে কাজ করছে। এখনো শিশুটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। শিশুটিকে সুস্থভাবে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে পুলিশ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।