রাজশাহীতে এসপির মামলায় নার্সিং ইনস্টিটিউটের পরিচালক গ্রেপ্তার

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:২৭:১২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২৪ ০ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে এক পুলিশ সুপারের (এসপি) করা মামলায় একটি কোচিং সেন্টারের পরিচালককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার নাম মনিরুজ্জামান বাবুল। তিনি বেসরকারী মমতা নার্সিং ইনস্টিটিউটের পরিচালক। বুধবার রাতে বাবুলকে মহানগরীর ডিঙ্গাডোবা এলাকার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে রাজপাড়া থানা পুলিশ।

মামলার বাদী আব্দুর রহিম শাহ চৌধুরী বর্তমানে টাঙ্গাইলে পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের এসপি (ট্রেনিং) পদে কর্মরত। গত বছরের ২৮ আগস্ট তিনি মনিরুজ্জামান বাবুল ও শবনম মোস্তারি নামের এক নারীর বিরুদ্ধে মহানগরীর বোয়ালিয়া থানায় স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন বাবুল এবং মমি। এ ঘটনায় বোয়ালিয়া আমলি আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

এদিকে প্রতারক বাবুল এবং মমির বিরুদ্ধে বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগেও এসপি আব্দুর রহিম শাহ চৌধুরী বোয়ালিয়া মডেল থানায় গতবছর আরেকটি মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে এসপি রহিম উল্লেখ করেন, ২০১৬ সালে ‘মমতা ট্রেনিং ইনস্টিটিউট’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান চালু করেন মনিরুজ্জামান বাবুল এবং শবনম মোস্তারি মমি। বালিয়াপুকুর এলাকায় ইনস্টিটিউটের জন্য তার বাড়িটি ভাড়া নেন তারা। বাড়িটি ভাড়া নিয়ে এখনও দখলে রেখেছেন বাবুল এবং মমি। দীর্ঘ সাড়ে সাত বছরে ২৪ লাখ টাকা বাড়ি ভাড়াও পরিশোধ করেনি তারা।

রাজপাড়া থানার ওসি রফিকুল হক জানান, বোয়ালিয়া থানার মামলায় রাজপাড়া থানা এলাকার বাসিন্দা বাবুলের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল। তাই তাকে বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বোয়ালিয়া থানার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার বাবুলকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার অন্য আসামিকে গ্রেপ্তারেও চেষ্টা চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজশাহীতে এসপির মামলায় নার্সিং ইনস্টিটিউটের পরিচালক গ্রেপ্তার

আপডেট সময় : ০৫:২৭:১২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীতে এক পুলিশ সুপারের (এসপি) করা মামলায় একটি কোচিং সেন্টারের পরিচালককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার নাম মনিরুজ্জামান বাবুল। তিনি বেসরকারী মমতা নার্সিং ইনস্টিটিউটের পরিচালক। বুধবার রাতে বাবুলকে মহানগরীর ডিঙ্গাডোবা এলাকার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে রাজপাড়া থানা পুলিশ।

মামলার বাদী আব্দুর রহিম শাহ চৌধুরী বর্তমানে টাঙ্গাইলে পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের এসপি (ট্রেনিং) পদে কর্মরত। গত বছরের ২৮ আগস্ট তিনি মনিরুজ্জামান বাবুল ও শবনম মোস্তারি নামের এক নারীর বিরুদ্ধে মহানগরীর বোয়ালিয়া থানায় স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন বাবুল এবং মমি। এ ঘটনায় বোয়ালিয়া আমলি আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

এদিকে প্রতারক বাবুল এবং মমির বিরুদ্ধে বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগেও এসপি আব্দুর রহিম শাহ চৌধুরী বোয়ালিয়া মডেল থানায় গতবছর আরেকটি মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে এসপি রহিম উল্লেখ করেন, ২০১৬ সালে ‘মমতা ট্রেনিং ইনস্টিটিউট’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান চালু করেন মনিরুজ্জামান বাবুল এবং শবনম মোস্তারি মমি। বালিয়াপুকুর এলাকায় ইনস্টিটিউটের জন্য তার বাড়িটি ভাড়া নেন তারা। বাড়িটি ভাড়া নিয়ে এখনও দখলে রেখেছেন বাবুল এবং মমি। দীর্ঘ সাড়ে সাত বছরে ২৪ লাখ টাকা বাড়ি ভাড়াও পরিশোধ করেনি তারা।

রাজপাড়া থানার ওসি রফিকুল হক জানান, বোয়ালিয়া থানার মামলায় রাজপাড়া থানা এলাকার বাসিন্দা বাবুলের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল। তাই তাকে বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বোয়ালিয়া থানার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার বাবুলকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার অন্য আসামিকে গ্রেপ্তারেও চেষ্টা চলছে।