রাজশাহী বিআরটিএ অফিসে দুদকের হানা, নথিপত্র জব্দ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:২৬:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২৪ ২ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) রাজশাহী সার্কেল কার্যালয়ে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এ অফিসে অভিযান চালান দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তারা। এ সময় বেশকিছু নথিপত্র জব্দ করা হয়।
এছাড়া দুদক কর্মকর্তারা বিআরটিএর কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সেবাপ্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলেন। রোববার বেলা ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত এই অভিযান চালানো হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক সাজ্জাদ হোসাইন।
দুদক কর্মকর্তারা জানান, বিআরটিএ অফিসে কর্মকর্তাদের ঘুষ না দিলে ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়া হয়, এমন অভিযোগ পেয়ে তারা অভিযান চালিয়েছেন।
দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ‘দুদক কমিশনে অভিযোগ গেছে যে এখানে ঘুষ না দিলে ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়া হয়। কমিশনের নির্দেশনা মোতাবেক এই অভিযান চালানো হলো। বেশকিছু ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদনের নথিপত্রও জব্দ করা হয়েছে। এই লাইসেন্স প্রত্যাশীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে চাওয়া হবে তারা ঘুষ দিয়েছেন কি না। সত্যতা পাওয়া গেলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য কমিশনে প্রতিবেদন দেওয়া হবে।’
তিনি জানান, প্রথম দিনের অভিযানেই তারা যে সমস্ত অভিযোগ পেয়েছেন তা দিয়ে কমিশনে প্রতিবেদন দিতে পারবেন। কর্মকর্তাদের ঘুষ নেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘অভিযোগ উঠতেই পারে। এর সত্যতা খুঁজে দেখবে দুদক। সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
অভিযোগের বিষয়ে বিআরটিএর রজাশাহী সার্কেলের সহকারী পরিচালক মোশারফ হোসেন বলেন, ‘ঘুষ না দিলে ফেল করিয়ে দেওয়া হয় এটা সত্য নয়। কারণ, পরীক্ষা নেওয়ার সময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি থাকেন। আমরা সহযোগিতা করি। যেটা হয় তা হলো প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কেউ ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য বের হলেই তাকে মধ্যস্বত্ত্বভোগী কেউ ধরে ফেলে। তারা আমাদের নাম ভাঙায়। আর আমাদের অফিসেও কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকতে পারে। আমরা বুঝতে পারলে সাথে সাথে ব্যবস্থা নিই।’
তিনি জানান, এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ঢাকায় সভা ছিল। তিনি সেই সভায় যোগ দিয়েছিলেন। তাই দুদকের অভিযানের সময় অফিসে ছিলেন না। তারা কোন অভিযোগে এসেছিলেন, কী নথি নিয়েছেন তা অফিসে যাবার পরে তিনি বলতে পারবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজশাহী বিআরটিএ অফিসে দুদকের হানা, নথিপত্র জব্দ

আপডেট সময় : ০১:২৬:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) রাজশাহী সার্কেল কার্যালয়ে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এ অফিসে অভিযান চালান দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তারা। এ সময় বেশকিছু নথিপত্র জব্দ করা হয়।
এছাড়া দুদক কর্মকর্তারা বিআরটিএর কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সেবাপ্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলেন। রোববার বেলা ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত এই অভিযান চালানো হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক সাজ্জাদ হোসাইন।
দুদক কর্মকর্তারা জানান, বিআরটিএ অফিসে কর্মকর্তাদের ঘুষ না দিলে ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়া হয়, এমন অভিযোগ পেয়ে তারা অভিযান চালিয়েছেন।
দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ‘দুদক কমিশনে অভিযোগ গেছে যে এখানে ঘুষ না দিলে ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়া হয়। কমিশনের নির্দেশনা মোতাবেক এই অভিযান চালানো হলো। বেশকিছু ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদনের নথিপত্রও জব্দ করা হয়েছে। এই লাইসেন্স প্রত্যাশীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে চাওয়া হবে তারা ঘুষ দিয়েছেন কি না। সত্যতা পাওয়া গেলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য কমিশনে প্রতিবেদন দেওয়া হবে।’
তিনি জানান, প্রথম দিনের অভিযানেই তারা যে সমস্ত অভিযোগ পেয়েছেন তা দিয়ে কমিশনে প্রতিবেদন দিতে পারবেন। কর্মকর্তাদের ঘুষ নেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘অভিযোগ উঠতেই পারে। এর সত্যতা খুঁজে দেখবে দুদক। সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
অভিযোগের বিষয়ে বিআরটিএর রজাশাহী সার্কেলের সহকারী পরিচালক মোশারফ হোসেন বলেন, ‘ঘুষ না দিলে ফেল করিয়ে দেওয়া হয় এটা সত্য নয়। কারণ, পরীক্ষা নেওয়ার সময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি থাকেন। আমরা সহযোগিতা করি। যেটা হয় তা হলো প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কেউ ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য বের হলেই তাকে মধ্যস্বত্ত্বভোগী কেউ ধরে ফেলে। তারা আমাদের নাম ভাঙায়। আর আমাদের অফিসেও কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকতে পারে। আমরা বুঝতে পারলে সাথে সাথে ব্যবস্থা নিই।’
তিনি জানান, এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ঢাকায় সভা ছিল। তিনি সেই সভায় যোগ দিয়েছিলেন। তাই দুদকের অভিযানের সময় অফিসে ছিলেন না। তারা কোন অভিযোগে এসেছিলেন, কী নথি নিয়েছেন তা অফিসে যাবার পরে তিনি বলতে পারবেন।