বাঘায় প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে মাংস ব্যবসায়ীকে হত্যা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:২৫:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪ ২ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

স্টাফ রিপোর্টার : বাঘায় মাংস বিক্রি করার দ্বন্দ্বের জেরে প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাত করে মাংস ব্যবসায়ী মামুন হোসেনকে (৩০) হত্যা করা হয়েছে। শনিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে আড়ানী হাটে এই ঘটনা ঘটে। মামুন হোসেন আড়ানী পৌরসভার পিয়াদাপাড়া গ্রামের মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে।

জানা যায়, মামুন আড়ানী হাটে গরু জবাই করে মাংস বিক্রি করছিলেন। এ সময় একই গ্রামের মৃত খোদা বক্রের ছেলে খোকন হোসেনও পাশে মাংস বিক্রি করছিলেন। দু’জনের মধ্যে মাংস বিক্রি নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে খোকনের হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে কুপিয়ে মামুনকে জখম করে। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে খোকনের কর্মচারিও রফিকুল ইসলাম বলেন, মামুন ও খোকন পরস্পর মামাতো ফুফাতো ভাই। এক সাথে তারা মাংসের ব্যবসা করতেন। কিছুদিন আগে তারা ব্যবসা আলাদা করেছেন। শনিবার (২০ জানুয়ারি) তারা দু’জন পাশাপাশি মাংস বিক্রি করছিলেন। খোকন ৭০০ টাকা এবং মামুন ৬৫০ টাকা প্রতিকেজি হিসেবে মাংস বিক্রি করছিলেন। এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে তর্কবির্তকের এক পর্যায়ে শতশত মানুষের সামনে প্রকাশ্যে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে মামুনকে হত্যা করে খোকন।

এ বিষয়ে মামুনের ছোট ভাই মানিক হোসেন বলেন, তারা ব্যবসা আলাদা করার পর থেকে খোকন বিভিন্ন সময়ে মামুনকে হুমকি দিয়ে আসছিল। আমাকে বিষয়টি কয়েকদিন আগে অবগত করেছিল মামুন।

যেহেতু আমরা পরস্পর মামাত ফুফাত ভাই এ নিয়ে উভয়কে দ্বন্দ্ব না করার জন্য নিষেধ করেছিলাম। তারপরও এমন ঘটনা ঘটিয়েছে খোকন। এ বিষয়ে তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দাবি জানাচ্ছি।
এ বিষয়ে বাঘা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, ঘটনা জানার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। বর্তমানে খোকন পলাতক রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বাঘায় প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে মাংস ব্যবসায়ীকে হত্যা

আপডেট সময় : ০৫:২৫:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার : বাঘায় মাংস বিক্রি করার দ্বন্দ্বের জেরে প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাত করে মাংস ব্যবসায়ী মামুন হোসেনকে (৩০) হত্যা করা হয়েছে। শনিবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে আড়ানী হাটে এই ঘটনা ঘটে। মামুন হোসেন আড়ানী পৌরসভার পিয়াদাপাড়া গ্রামের মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে।

জানা যায়, মামুন আড়ানী হাটে গরু জবাই করে মাংস বিক্রি করছিলেন। এ সময় একই গ্রামের মৃত খোদা বক্রের ছেলে খোকন হোসেনও পাশে মাংস বিক্রি করছিলেন। দু’জনের মধ্যে মাংস বিক্রি নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে খোকনের হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে কুপিয়ে মামুনকে জখম করে। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে খোকনের কর্মচারিও রফিকুল ইসলাম বলেন, মামুন ও খোকন পরস্পর মামাতো ফুফাতো ভাই। এক সাথে তারা মাংসের ব্যবসা করতেন। কিছুদিন আগে তারা ব্যবসা আলাদা করেছেন। শনিবার (২০ জানুয়ারি) তারা দু’জন পাশাপাশি মাংস বিক্রি করছিলেন। খোকন ৭০০ টাকা এবং মামুন ৬৫০ টাকা প্রতিকেজি হিসেবে মাংস বিক্রি করছিলেন। এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে তর্কবির্তকের এক পর্যায়ে শতশত মানুষের সামনে প্রকাশ্যে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে মামুনকে হত্যা করে খোকন।

এ বিষয়ে মামুনের ছোট ভাই মানিক হোসেন বলেন, তারা ব্যবসা আলাদা করার পর থেকে খোকন বিভিন্ন সময়ে মামুনকে হুমকি দিয়ে আসছিল। আমাকে বিষয়টি কয়েকদিন আগে অবগত করেছিল মামুন।

যেহেতু আমরা পরস্পর মামাত ফুফাত ভাই এ নিয়ে উভয়কে দ্বন্দ্ব না করার জন্য নিষেধ করেছিলাম। তারপরও এমন ঘটনা ঘটিয়েছে খোকন। এ বিষয়ে তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দাবি জানাচ্ছি।
এ বিষয়ে বাঘা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, ঘটনা জানার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। বর্তমানে খোকন পলাতক রয়েছে।