সর্বশেষ ::
নারীর ক্ষমতায়নে পুনাককে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান ড. রেবেকা সুলতানার নাম থেকে স্বামীর চিহ্ন মুছে ফেললেন মাহি রাজশাহী ফটো জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন আরএমপি’র কমিশনারসহ ৪০০ জনকে পদক পরালেন প্রধানমন্ত্রী বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিল রাজপাড়া থানা পুলিশ রাজশাহী এডিটরস ফোরামের কমিটি গঠন আরটিজেএ নির্বাচন : সভাপতি মেহেদী, সাধারণ সম্পাদক রাব্বানী নির্বাচিত ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি রাজশাহীতে যাত্রা শুরু করছে শহীদ কামারুজ্জামান নার্সিং কলেজ শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যানে চালু হলো দৃষ্টিনন্দন ড্যান্সিং ফোয়ারা

জেঁকে বসেছে শীত, দিনভর দেখা মেলেনি সূর্যের

  • আপডেট সময় : ০৬:৫৫:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪ ২ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে জেঁকে বসেছে শীত। মাঘের প্রথমদিনই রাজশাহীতে দেখা মেলেনি সূর্যের। চারপাশ কুয়াশায় ঢাকা থাকলেও কখনগুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মত ঝড়েছে কুয়াশা। এমন অবস্থায় জীবিকার তাগিদে ঘরের বাইরে আসা নিম্ন আয়ের মানুষগুলোকে পড়তে হয়েছে বিপাকে। বিভিন্ন পেশায় নিয়তিজ এমন মানুষগুলোকে শীত উপেক্ষা করে কাজ করতে হয়েছে। তবে শীতের কারণে প্রয়োজন ছাড়া খুব কম মানুষই ঘরের বাইরে বের হয়েছেন।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষণাগার সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীতে দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি। আর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ফারাক বেশি না থাকায় বেড়েছে শীতের তীব্রতা। সকাল ছয়টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯৭ শতাংশ ও সন্ধ্যা ছয়টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯১ শতাংশ। এছাড়া আগামি ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারি রাজশাহীতে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

জানা গেছে, সকাল থেকে চারপাশে কুয়াশা ছিল। বিভন্ন যানবাহনগুলোকে ফগার লাইট জ¦ালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে কুয়াশা কিছুটা কমলেও গুঁড়ি গুঁড়ির মত কুয়াশা ঝড়েছে। এমন অবস্থায় নগরীতে কাজে আশা নিম্ন আয়ের মানুষদের শীত উপেক্ষা করে জীবিকার তাগিদে কাজ করতে দেখা গেছে। অপরদিকে, কুয়াশার কারণে বোরো ধানের বীজতলায় লালচে ও হলুদ বর্ণের হয়ে গেছে। তবে কৃষি অফিস বলছে পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। একই সাথে ধানের বীজ থেকে খেজুরের বা তালের ডাল কুয়াশা ফেলে দেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

অটোরিক্সা চালক সাইফুল ইসলাম বলেন, সকালে বেশি কুয়াশা ছিল। বেলা বাড়ার সাথে সাথে কুয়াশা কমতে থাকে। তবে সারাদিন সূর্যের দেখা মেলেনি। ফলে সূর্যের তাপ ছিল না সারাদিন। এতে করে বেশি শীত অনুভূত হয়েছে। রিক্সা চালানোর সময় ঠান্ডা বাতাস লাগছে। আর বৃষ্টির মত পড়া কুয়াশার কারণে জ্যাকেট ভিজে গেছে। এতে করে সড়কে চলাচল করতে অনেক কষ্ট হচ্ছে।

পবা পাড়িলা ইউনিয়ন থেকে নগরীতে কাজের সন্ধানে আসা তালাইমারী মোড়ে বসে থাকা নির্মাণ শ্রমিক রাকিব আলী বলেন, শীতের কারণে কাম-কাজ কম। গত দুইদিন এসে কাজ না পেয়ে ফিরে গেছি। অনেকেই ফিরে যাচ্ছে। এমন আবহাওয়া কেটে গেলে তাদের কাজ হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

নগরীর বুধপাড়া এলাকায় কৃষি জমিতে ঢেঢ়সের বীজ বপনের কাজ করছেন শামীম। শামীম জানান, কুয়াশার বৃষ্টির মত ঝড়ছে। শরীরের কাপড় ভিজে যাচ্ছে। খালি পাঁয়ে মাটিতে দাঁড়িয়ে থেকে কাজ করতে কষ্ট হচ্ছে। তারপরেও উপাই নেই, কাজ করতেই হবে।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষক রেজওয়ানুল হক বলেন, গত দুই দিনের তুলনায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বেড়েছে। তবে কমেছে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। আর দিনের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে মাত্র ৫ ডিগ্রি কম বেশি। সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কাছাকাছির কারণে বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে। একই সাথে দিনভর ছিলনা সূর্যের দেখা। তার পরেও আবার কুয়াশা ঝড়েছে বৃষ্টির মত। এর ফলে বেশি শীত অনুভূত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

জেঁকে বসেছে শীত, দিনভর দেখা মেলেনি সূর্যের

আপডেট সময় : ০৬:৫৫:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে জেঁকে বসেছে শীত। মাঘের প্রথমদিনই রাজশাহীতে দেখা মেলেনি সূর্যের। চারপাশ কুয়াশায় ঢাকা থাকলেও কখনগুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মত ঝড়েছে কুয়াশা। এমন অবস্থায় জীবিকার তাগিদে ঘরের বাইরে আসা নিম্ন আয়ের মানুষগুলোকে পড়তে হয়েছে বিপাকে। বিভিন্ন পেশায় নিয়তিজ এমন মানুষগুলোকে শীত উপেক্ষা করে কাজ করতে হয়েছে। তবে শীতের কারণে প্রয়োজন ছাড়া খুব কম মানুষই ঘরের বাইরে বের হয়েছেন।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষণাগার সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীতে দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি। আর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ফারাক বেশি না থাকায় বেড়েছে শীতের তীব্রতা। সকাল ছয়টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯৭ শতাংশ ও সন্ধ্যা ছয়টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯১ শতাংশ। এছাড়া আগামি ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারি রাজশাহীতে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

জানা গেছে, সকাল থেকে চারপাশে কুয়াশা ছিল। বিভন্ন যানবাহনগুলোকে ফগার লাইট জ¦ালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে কুয়াশা কিছুটা কমলেও গুঁড়ি গুঁড়ির মত কুয়াশা ঝড়েছে। এমন অবস্থায় নগরীতে কাজে আশা নিম্ন আয়ের মানুষদের শীত উপেক্ষা করে জীবিকার তাগিদে কাজ করতে দেখা গেছে। অপরদিকে, কুয়াশার কারণে বোরো ধানের বীজতলায় লালচে ও হলুদ বর্ণের হয়ে গেছে। তবে কৃষি অফিস বলছে পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। একই সাথে ধানের বীজ থেকে খেজুরের বা তালের ডাল কুয়াশা ফেলে দেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

অটোরিক্সা চালক সাইফুল ইসলাম বলেন, সকালে বেশি কুয়াশা ছিল। বেলা বাড়ার সাথে সাথে কুয়াশা কমতে থাকে। তবে সারাদিন সূর্যের দেখা মেলেনি। ফলে সূর্যের তাপ ছিল না সারাদিন। এতে করে বেশি শীত অনুভূত হয়েছে। রিক্সা চালানোর সময় ঠান্ডা বাতাস লাগছে। আর বৃষ্টির মত পড়া কুয়াশার কারণে জ্যাকেট ভিজে গেছে। এতে করে সড়কে চলাচল করতে অনেক কষ্ট হচ্ছে।

পবা পাড়িলা ইউনিয়ন থেকে নগরীতে কাজের সন্ধানে আসা তালাইমারী মোড়ে বসে থাকা নির্মাণ শ্রমিক রাকিব আলী বলেন, শীতের কারণে কাম-কাজ কম। গত দুইদিন এসে কাজ না পেয়ে ফিরে গেছি। অনেকেই ফিরে যাচ্ছে। এমন আবহাওয়া কেটে গেলে তাদের কাজ হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

নগরীর বুধপাড়া এলাকায় কৃষি জমিতে ঢেঢ়সের বীজ বপনের কাজ করছেন শামীম। শামীম জানান, কুয়াশার বৃষ্টির মত ঝড়ছে। শরীরের কাপড় ভিজে যাচ্ছে। খালি পাঁয়ে মাটিতে দাঁড়িয়ে থেকে কাজ করতে কষ্ট হচ্ছে। তারপরেও উপাই নেই, কাজ করতেই হবে।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষক রেজওয়ানুল হক বলেন, গত দুই দিনের তুলনায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বেড়েছে। তবে কমেছে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। আর দিনের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে মাত্র ৫ ডিগ্রি কম বেশি। সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কাছাকাছির কারণে বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে। একই সাথে দিনভর ছিলনা সূর্যের দেখা। তার পরেও আবার কুয়াশা ঝড়েছে বৃষ্টির মত। এর ফলে বেশি শীত অনুভূত হয়েছে।