চাঁপাইনবাবগঞ্জ সুদের টাকা লেনদেনের জেরে পুড়িয়ে হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

  • আপডেট সময় : ০৫:৩৯:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৪ ১ বার পড়া হয়েছে

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মহাডাঙ্গা এলাকার ঢাবা মাঠে স্বপ্না আক্তার জেসমিন হত্যার পর পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় তিন নারীসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সুদের টাকা লেনদেনের জেরে এ হত্যাকাণ্ড বলে মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জানান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিন্টু রহমান।
গ্রেপ্তার চারজন হলেন- শরিফুল ইসলাম, পারভীন, আয়েশা বেগম ও লেতুন জেরা।

মামলা দায়েরের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয় জানিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মিন্টু রহমান বলেন, সুদের টাকা লেনদেনকে কেন্দ্র করে পরিকল্পিতভাবে জেসমিনকে হত্যা করা হয়। হত্যার পর তাকে যেন কেউ চিনতে না পারেন, সেজন্য তাকে পেট্রল দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ অজ্ঞাতপরিচয় অবস্থায় জেসমিনের মরদেহ উদ্ধার করে। এরপর তদন্ত শুরু করে পুলিশ। এর আগে নিহত জেসমিনের আপন বড় ভাই হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে গত ৮ জানুয়ারি সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা শরিফুলসহ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ওই চারজনকে গ্রেপ্তার করে। হত্যাকাণ্ডের ব্যবহৃত হাঁসুয়াসহ অন্যান্য আলামতও জব্দ করে।

ওসি মিন্টু রহমান আরও জানান, জেসমিন হত্যা মামলার মূল আসামি দোষ স্বীকার করে মঙ্গলবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে তাদের জেলহাজতে পাঠানো।

নিউজটি শেয়ার করুন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সুদের টাকা লেনদেনের জেরে পুড়িয়ে হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

আপডেট সময় : ০৫:৩৯:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৪

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মহাডাঙ্গা এলাকার ঢাবা মাঠে স্বপ্না আক্তার জেসমিন হত্যার পর পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় তিন নারীসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সুদের টাকা লেনদেনের জেরে এ হত্যাকাণ্ড বলে মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জানান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিন্টু রহমান।
গ্রেপ্তার চারজন হলেন- শরিফুল ইসলাম, পারভীন, আয়েশা বেগম ও লেতুন জেরা।

মামলা দায়েরের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয় জানিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মিন্টু রহমান বলেন, সুদের টাকা লেনদেনকে কেন্দ্র করে পরিকল্পিতভাবে জেসমিনকে হত্যা করা হয়। হত্যার পর তাকে যেন কেউ চিনতে না পারেন, সেজন্য তাকে পেট্রল দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ অজ্ঞাতপরিচয় অবস্থায় জেসমিনের মরদেহ উদ্ধার করে। এরপর তদন্ত শুরু করে পুলিশ। এর আগে নিহত জেসমিনের আপন বড় ভাই হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে গত ৮ জানুয়ারি সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা শরিফুলসহ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ওই চারজনকে গ্রেপ্তার করে। হত্যাকাণ্ডের ব্যবহৃত হাঁসুয়াসহ অন্যান্য আলামতও জব্দ করে।

ওসি মিন্টু রহমান আরও জানান, জেসমিন হত্যা মামলার মূল আসামি দোষ স্বীকার করে মঙ্গলবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে তাদের জেলহাজতে পাঠানো।