এমপিকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে পিটুনির শিকার ইউপি চেয়ারম্যান

  • আপডেট সময় : ০৫:২৪:১১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৪ ০ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের পুনঃনির্বাচিত এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে পিটুনি খেয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক চেয়ারম্যান। সোমবার দিনগত রাত নয়টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর নিউমার্কেট এলাকায় ফারুক চৌধুরীর মালিকানাধীন থিম ওমর প্লাজার নীচতলায় তার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার পর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। নিজের ও পরিবারের জানমালের নিরাপত্তা চেয়ে নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছেন। এই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম রাব্বানীর কাঁচি প্রতীকের সমর্থক ছিলেন গোদাগাড়ী সদর ইউপির চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি।
অভিযোগ মতে, গোদাগাড়ী সদর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি সোমবার রাতে নগরীর থিম ওমর প্লাজায় যান রাজশাহী-১ আসনের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে। রাত নয়টার দিকে ফুল দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় গোদাগাড়ী সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন সেন্টুর নির্দেশে ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ বাবুর নেতৃত্বে ১০/১২ জন ক্যাডার মাসুদুল গণির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। ক্যাডাররা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল গণিকে কিল ঘুসি ও লাথি মারতে থাকে। এ সময় মাসুদুল গনির লোকজন ছুটে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। ঘটনার পর চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি প্রাথমিক চিকিৎসা নেন।
মাসুদুল গনির অভিযোগ, পারভেজ বাবুর নেতৃত্বে তার দলবল নিয়ে আমার ওপর আকস্মিকভাবে হামলা করে। হামলকারীরা তাকে বলে, ‘তুই কাঁচির ভোট করেছিস। এখন এমপিকে ফুল দিতে এসেছিস কেন।’ দু’এক কথা বলতে বলতে এলোপাথাড়ি মারপিট শুরু করে। এ ঘটনায় আমি হতবিহব্বল হয়ে পড়ি। আমাকে মারতে দেখে আমার লোকজন ছুটে আসলে তারা পালিয়ে যায়। আমি তাৎক্ষণিক ওমর ফারুক চৌধুরীকে ঘটনা জানাই।
এদিকে ইউপি চেয়ারম্যানকে পিটিয়ে আহত করার বিষয়ে জানতে রাজশাহী-১ আসনের এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেননি। ফলে এই বিষয়ে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। তবে অভিযোগের বিষয়ে গোদাগাড়ী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ মোশাররফ বাবু অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এমপিকে ফুল দিতে যাওয়ার সময় ভিড়ের মধ্যে কে কাকে মেরেছে আমরা জানি না। আমরা চেয়ারম্যানকে মারিনি।
গত ১২ ডিসেম্বর ওমর প্লাজার নিচতলায় এমপি ফারুকের রাজনৈতিক কার্যালয় সংলগ্ন সেফটি ট্যাংকের ভেতর থেকে নয়নাল উদ্দিন (৬২) নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মীর লাশ উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে থানায় হত্যা মামলা হয়। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
এদিকে ২০২২ সালের ৭ জুলাই ওমর প্লাজার রাজনৈতিক কার্যালয়ে রাজাবাড়ী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম রেজাকে হকি স্টিক দিয়ে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠে এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর বিরুদ্ধে। যদিও ওমর ফারুক চৌধুরী পরে সে অভিযোগ অস্বীকার করেন। ভুক্তভোগীরা আরও জানান, থিম ওমর প্লাজায় এর আগেও দলীয় নেতাকর্মীদের পেটানোর ঘটনা ঘটেছে। তবে ফারুক চৌধুরী প্রতিটি ঘটনাতে নিজের সম্পৃক্ততার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এমপিকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে পিটুনির শিকার ইউপি চেয়ারম্যান

আপডেট সময় : ০৫:২৪:১১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের পুনঃনির্বাচিত এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে পিটুনি খেয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক চেয়ারম্যান। সোমবার দিনগত রাত নয়টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর নিউমার্কেট এলাকায় ফারুক চৌধুরীর মালিকানাধীন থিম ওমর প্লাজার নীচতলায় তার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার পর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। নিজের ও পরিবারের জানমালের নিরাপত্তা চেয়ে নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছেন। এই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম রাব্বানীর কাঁচি প্রতীকের সমর্থক ছিলেন গোদাগাড়ী সদর ইউপির চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি।
অভিযোগ মতে, গোদাগাড়ী সদর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি সোমবার রাতে নগরীর থিম ওমর প্লাজায় যান রাজশাহী-১ আসনের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে। রাত নয়টার দিকে ফুল দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় গোদাগাড়ী সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন সেন্টুর নির্দেশে ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ বাবুর নেতৃত্বে ১০/১২ জন ক্যাডার মাসুদুল গণির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। ক্যাডাররা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল গণিকে কিল ঘুসি ও লাথি মারতে থাকে। এ সময় মাসুদুল গনির লোকজন ছুটে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। ঘটনার পর চেয়ারম্যান মাসুদুল গনি প্রাথমিক চিকিৎসা নেন।
মাসুদুল গনির অভিযোগ, পারভেজ বাবুর নেতৃত্বে তার দলবল নিয়ে আমার ওপর আকস্মিকভাবে হামলা করে। হামলকারীরা তাকে বলে, ‘তুই কাঁচির ভোট করেছিস। এখন এমপিকে ফুল দিতে এসেছিস কেন।’ দু’এক কথা বলতে বলতে এলোপাথাড়ি মারপিট শুরু করে। এ ঘটনায় আমি হতবিহব্বল হয়ে পড়ি। আমাকে মারতে দেখে আমার লোকজন ছুটে আসলে তারা পালিয়ে যায়। আমি তাৎক্ষণিক ওমর ফারুক চৌধুরীকে ঘটনা জানাই।
এদিকে ইউপি চেয়ারম্যানকে পিটিয়ে আহত করার বিষয়ে জানতে রাজশাহী-১ আসনের এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেননি। ফলে এই বিষয়ে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। তবে অভিযোগের বিষয়ে গোদাগাড়ী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ মোশাররফ বাবু অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এমপিকে ফুল দিতে যাওয়ার সময় ভিড়ের মধ্যে কে কাকে মেরেছে আমরা জানি না। আমরা চেয়ারম্যানকে মারিনি।
গত ১২ ডিসেম্বর ওমর প্লাজার নিচতলায় এমপি ফারুকের রাজনৈতিক কার্যালয় সংলগ্ন সেফটি ট্যাংকের ভেতর থেকে নয়নাল উদ্দিন (৬২) নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মীর লাশ উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে থানায় হত্যা মামলা হয়। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
এদিকে ২০২২ সালের ৭ জুলাই ওমর প্লাজার রাজনৈতিক কার্যালয়ে রাজাবাড়ী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম রেজাকে হকি স্টিক দিয়ে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠে এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর বিরুদ্ধে। যদিও ওমর ফারুক চৌধুরী পরে সে অভিযোগ অস্বীকার করেন। ভুক্তভোগীরা আরও জানান, থিম ওমর প্লাজায় এর আগেও দলীয় নেতাকর্মীদের পেটানোর ঘটনা ঘটেছে। তবে ফারুক চৌধুরী প্রতিটি ঘটনাতে নিজের সম্পৃক্ততার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।