নৌকা এগিয়ে যাচ্ছে, কেউ ঘেউ ঘেউ করলে কিছু যায় আসে না : লিটন

  • আপডেট সময় : ০২:১৯:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০২৩ ১ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান বলেছেন, ‘যারা বলে ৭ তারিখের আগে সরকারের পতন হবে, তারা এই কথা গত ৭ বছর ধরেই বলে আসছে। কিন্তু সরকারের পতন ঘটেনি। আরব দেশের একটা প্রবাদ আছে, “কুকুরগুলো ঘেউ ঘেউ করে, উটের কাফেলা এগিয়ে যায়।” আমাদের কাফেলা- নৌকার কাফেলা সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। পেছনে কেউ ঘেউ ঘেউ করলেও আমাদের এখন কিছু যায় আসে না।’
আসন্ন নির্বাচনে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের সংসদ সদস্য প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে কাটাখালীর মাসকাটাদিঘী স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে এক নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। কাটাখালী পৌরসভা নির্বাচন পরিচালনা কমিটি শুক্রবার বিকালে এ সভার আয়োজন করে।
খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘যারা ৭ তারিখের আগে সরকারের পতনের কথা বলেছিল, তারা এখন কোথায় কী করছে, আপনারা, আমরা সবই দেখছি। কেউ নির্বাচন ব্যাহত করতে বা ভোট প্রদানে বাধাগ্রস্ত করতে আসলে তাদেরকে নিজ দায়িত্বে প্রতিহত করতে হবে। ৭ জানুয়ারি জনগণ নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে প্রমাণ করবে, তারা শেখ হাসিনার সঙ্গে আছে, উন্নয়নের সঙ্গে আছে।’
রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন আরও বলেন, ‘যারা ২০১৪, ২০১৮ সালে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চেয়েছিল, তারা গত এক বছর ধরে নানা ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার করছে। তারা বাসে, ট্রেনে আগুন দিয়ে মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে প্রমাণ করেছে, তারা অতীতের ন্যায় অগ্নি সন্ত্রাসের সঙ্গেই আছে। তারা মানুষের কল্যান করতে পারে না।’
তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। নির্বাচনী ইশতেহারে প্রধান অগ্রাধিকার হচ্ছে দ্রব্যমূল্যের দাম কমানো। এছাড়া আগামী ৫ বছরে ১ কোটি তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা। নির্বাচনের পর অনেক চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হবে। আপনাদের ছেলে-মেয়েদের তার জন্য প্রস্তুত করুন।’

লিটন বলেন, ‘এখানে জুট ও সুগার মিল ঠিকমতো চলছে না। এগুলো ভালোমতো চালানোর যথাযথ উদ্যোগ নেওয়া হবে। শিল্পায়নের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। রাজশাহীতে নৌবন্দর প্রতিষ্ঠা করা হবে। নৌবন্দর চালু হলে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে। আপনারা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আসাদুজ্জামান আসাদকে নির্বাচিত করুন।’
নির্বাচনী সভার প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদ। কাটাখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও কাটাখালী পৌর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক আব্বাস আলীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন- জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল কুমার সরকার, পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র আব্দুল খালেক প্রমুখ।
কাটাখালী পৌর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য জহুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন- নগর আওয়ামী লীগের সদস্য হাবিবুর রহমান বাবু, জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আজম সেন্টু, নগর যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনি, মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজ উদ্দিন কবিরাজ প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

নৌকা এগিয়ে যাচ্ছে, কেউ ঘেউ ঘেউ করলে কিছু যায় আসে না : লিটন

আপডেট সময় : ০২:১৯:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০২৩

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান বলেছেন, ‘যারা বলে ৭ তারিখের আগে সরকারের পতন হবে, তারা এই কথা গত ৭ বছর ধরেই বলে আসছে। কিন্তু সরকারের পতন ঘটেনি। আরব দেশের একটা প্রবাদ আছে, “কুকুরগুলো ঘেউ ঘেউ করে, উটের কাফেলা এগিয়ে যায়।” আমাদের কাফেলা- নৌকার কাফেলা সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। পেছনে কেউ ঘেউ ঘেউ করলেও আমাদের এখন কিছু যায় আসে না।’
আসন্ন নির্বাচনে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের সংসদ সদস্য প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে কাটাখালীর মাসকাটাদিঘী স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে এক নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। কাটাখালী পৌরসভা নির্বাচন পরিচালনা কমিটি শুক্রবার বিকালে এ সভার আয়োজন করে।
খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘যারা ৭ তারিখের আগে সরকারের পতনের কথা বলেছিল, তারা এখন কোথায় কী করছে, আপনারা, আমরা সবই দেখছি। কেউ নির্বাচন ব্যাহত করতে বা ভোট প্রদানে বাধাগ্রস্ত করতে আসলে তাদেরকে নিজ দায়িত্বে প্রতিহত করতে হবে। ৭ জানুয়ারি জনগণ নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে প্রমাণ করবে, তারা শেখ হাসিনার সঙ্গে আছে, উন্নয়নের সঙ্গে আছে।’
রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন আরও বলেন, ‘যারা ২০১৪, ২০১৮ সালে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চেয়েছিল, তারা গত এক বছর ধরে নানা ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার করছে। তারা বাসে, ট্রেনে আগুন দিয়ে মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে প্রমাণ করেছে, তারা অতীতের ন্যায় অগ্নি সন্ত্রাসের সঙ্গেই আছে। তারা মানুষের কল্যান করতে পারে না।’
তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। নির্বাচনী ইশতেহারে প্রধান অগ্রাধিকার হচ্ছে দ্রব্যমূল্যের দাম কমানো। এছাড়া আগামী ৫ বছরে ১ কোটি তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা। নির্বাচনের পর অনেক চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হবে। আপনাদের ছেলে-মেয়েদের তার জন্য প্রস্তুত করুন।’

লিটন বলেন, ‘এখানে জুট ও সুগার মিল ঠিকমতো চলছে না। এগুলো ভালোমতো চালানোর যথাযথ উদ্যোগ নেওয়া হবে। শিল্পায়নের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। রাজশাহীতে নৌবন্দর প্রতিষ্ঠা করা হবে। নৌবন্দর চালু হলে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে। আপনারা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আসাদুজ্জামান আসাদকে নির্বাচিত করুন।’
নির্বাচনী সভার প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদ। কাটাখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও কাটাখালী পৌর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক আব্বাস আলীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন- জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল কুমার সরকার, পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র আব্দুল খালেক প্রমুখ।
কাটাখালী পৌর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য জহুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন- নগর আওয়ামী লীগের সদস্য হাবিবুর রহমান বাবু, জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আজম সেন্টু, নগর যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনি, মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজ উদ্দিন কবিরাজ প্রমুখ।