সর্বশেষ ::

সুদান যুদ্ধে ৭ লক্ষেরও বেশি লোক বাস্তুচ্যুত : জাতিসংঘ

  • আপডেট সময় : ০৯:৩৭:৪৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩ ৩ বার পড়া হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক : সুদানে গৃহযুদ্ধের কারণে ৭ লক্ষেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। জাতিসংঘ বৃহস্পতিবার বলেছে, আগের বাস্তুচ্যুত মানুষ পূর্বের একটি নিরাপদ আশ্রয়স্থল থেকে পালিয়ে যাওয়া অব্যাহত রেখেছে।
জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছেন, ‘ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশনের মতে, বড় আকারের বাস্তুচ্যুতির নতুন ঢেউয়ে আল-জাজিরা রাজ্যের ওয়াদ মাদানি থেকে ৩ লক্ষ মানুষ পালিয়ে গেছে।’
তিনি আরো বলেছেন, আরও ১৫ লক্ষ মানুষ প্রতিবেশী দেশে পালিয়ে গেছে।
দুজারিক বলেছেন, ‘এই সর্বশেষ সুদানের বাস্তুচ্যুত জনসংখ্যাকে ৭১ লক্ষের দিকে ঠেলে দেবে, যা বিশ্বের বৃহত্তম বাস্তুচ্যুতির সংকটের ঘটনা।’
যুদ্ধের আগে রাজ্যের রাজধানীকে ঘিরে ফেলার আগে ৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ সুদানের যুদ্ধ-পূর্ব রুটির ঝুড়ি আল-জাজিরাতে আশ্রয় পেয়েছিলেন।
জাতিসংঘের শিশু সংস্থা ইউনিসেফের প্রধান ক্যাথরিন রাসেল বলেছেন, ‘সুদানে আমাদের সহকর্মীরা মাদানি শহরের নিরাপত্তায় পৌঁছানোর জন্য নারী ও শিশুদেরকে বাধ্য করা কষ্টকর যাত্রার গল্প শুনেছেন।’
রাসেল বলেছেন, ‘এখন, এমনকী নিরাপত্তার সেই ভঙ্গুর বোধও ভেঙ্গে পড়েছে। কারণ, সেই একই শিশুদের আবারও তাদের বাড়ি থেকে জোরপূর্বক বের করে দিতে বাধ্য করা হয়েছে। কোনো শিশুকে যুদ্ধের ভয়াবহতা অনুভব করতে হবে না। শিশু এবং তারা যে বেসামরিক অবকাঠামোর উপর নির্ভর করে, তাদের অবশ্যই রক্ষা করা উচিত।’

নিউজটি শেয়ার করুন

সুদান যুদ্ধে ৭ লক্ষেরও বেশি লোক বাস্তুচ্যুত : জাতিসংঘ

আপডেট সময় : ০৯:৩৭:৪৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩

অনলাইন ডেস্ক : সুদানে গৃহযুদ্ধের কারণে ৭ লক্ষেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। জাতিসংঘ বৃহস্পতিবার বলেছে, আগের বাস্তুচ্যুত মানুষ পূর্বের একটি নিরাপদ আশ্রয়স্থল থেকে পালিয়ে যাওয়া অব্যাহত রেখেছে।
জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছেন, ‘ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশনের মতে, বড় আকারের বাস্তুচ্যুতির নতুন ঢেউয়ে আল-জাজিরা রাজ্যের ওয়াদ মাদানি থেকে ৩ লক্ষ মানুষ পালিয়ে গেছে।’
তিনি আরো বলেছেন, আরও ১৫ লক্ষ মানুষ প্রতিবেশী দেশে পালিয়ে গেছে।
দুজারিক বলেছেন, ‘এই সর্বশেষ সুদানের বাস্তুচ্যুত জনসংখ্যাকে ৭১ লক্ষের দিকে ঠেলে দেবে, যা বিশ্বের বৃহত্তম বাস্তুচ্যুতির সংকটের ঘটনা।’
যুদ্ধের আগে রাজ্যের রাজধানীকে ঘিরে ফেলার আগে ৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ সুদানের যুদ্ধ-পূর্ব রুটির ঝুড়ি আল-জাজিরাতে আশ্রয় পেয়েছিলেন।
জাতিসংঘের শিশু সংস্থা ইউনিসেফের প্রধান ক্যাথরিন রাসেল বলেছেন, ‘সুদানে আমাদের সহকর্মীরা মাদানি শহরের নিরাপত্তায় পৌঁছানোর জন্য নারী ও শিশুদেরকে বাধ্য করা কষ্টকর যাত্রার গল্প শুনেছেন।’
রাসেল বলেছেন, ‘এখন, এমনকী নিরাপত্তার সেই ভঙ্গুর বোধও ভেঙ্গে পড়েছে। কারণ, সেই একই শিশুদের আবারও তাদের বাড়ি থেকে জোরপূর্বক বের করে দিতে বাধ্য করা হয়েছে। কোনো শিশুকে যুদ্ধের ভয়াবহতা অনুভব করতে হবে না। শিশু এবং তারা যে বেসামরিক অবকাঠামোর উপর নির্ভর করে, তাদের অবশ্যই রক্ষা করা উচিত।’