পুরো গাজা ভযাবহ ক্ষুধার মুখোমুখি : জাতিসংঘ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:২৪:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩ ০ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

অনলাইন ডেস্ক : যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজার প্রতিটি মানুষ আগামী ছয় সপ্তাহের মধ্যে উচ্চ মাত্রার খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের ক্ষুধা পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থার একটি প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে।
আইপিসি নামে পরিচিত পাঁচ-স্কেল খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার শ্রেণি বিভাগ তার ‘সম্ভবত দৃশ্যপটে’ পূর্বাভাস দিয়েছে,৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ‘গাজা উপত্যকার সমগ্র জনসংখ্যা (প্রায় ২২ লাখ মানুষ)’ ‘সঙ্কট বা আরও খারাপ’ স্তরে থাকবে।
আইপসি বলেছে, এটি উচ্চ স্তরের তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন লোকদের মধ্যে সর্বোচ্চ অংশ যা আইপিসি উদ্যোগ কোন প্রদত্ত অঞ্চল বা দেশের জন্য শ্রেণিবদ্ধ করেছে।’
প্রতিদিনের বোমাবর্ষণ, খাদ্য ও পানির ঘাটতি এবং ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি সহ্য করা গাজাবাসীদের দুর্দশার বিষয়ে আন্তর্জাতিক সতর্কতা বেড়েছে।
ইন্টিগ্রেটেড ফুড সিকিউরিটি ফেজ ক্লাসিফিকেশন (আইপিসি) ক্ষুধার মাত্রা এক থেকে পাঁচ পর্যন্ত নির্ধারন করে।
প্রতিবেদনে সতর্ক করা হয়েছে, জনসংখ্যার প্রায় ৫০ শতাংশ ‘জরুরী’ পর্যায়ে থাকবে-যার মধ্যে রয়েছে খুব উচ্চ তীব্র অপুষ্টি এবং অতিরিক্ত মৃত্যুহার ৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে।
এটি ভবিষ্যদ্বাণী করেছে, ‘চারটি পরিবারের মধ্যে অন্তত একজন’, পাঁ লাখেরও বেশি মানুষ, ‘ফেজ-৫’ বিপর্যয়কর পরিস্থিতির মুখোমুখি হবে।
আইপিসি বলেছে, ‘যদিও তীব্র অপুষ্টি এবং নন-ট্রমা সংক্রান্ত মৃত্যুর মাত্রা এখনও দুর্ভিক্ষের সীমা অতিক্রম করতে পারেনি। এটি সাধারণত দীর্ঘায়িত এবং চরম খাদ্য গ্রহণের ব্যবধানের ফলাফল।’
আন্তর্জাতিক মানবিক সংস্থা কেয়ার বলেছে,পরিসংখ্যানগুলো ‘উদ্বেগজনক’ এবং জার্মানি তাদের ‘ভয়াবহ’ বলেছে।
‘এটি জরুরী যে, ইসরায়েল সহায়তার জন্য আরও ভাল মানবিক সহায়তা পাঠানোর পথ পরিষ্কার করে এবং তাদের সামরিক কৌশলকে মানিয়ে নেয় এবং মানবিক বিরতির অনুমতি দেয়,’ জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক্সে লিখেছিল, যা পূর্বে টুইটার নামে পরিচিত ছিল, সতর্ক করে যে ‘ক্ষুধা সন্ত্রাসকে লালন করে’।
ইসরায়েলি পরিসংখ্যানের উপর ভিত্তি করে এএফপি’র তথ্য অনুসারে, গাজায় যুদ্ধ শুরু হয় যখন এর ইসলামপন্থী শাসক হামাস ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে অনুপ্রবেশ করে এবং প্রায় ১,১৪০ জনকে হত্যা করে। এদের বেশিরভাগই বেসামরিক নাগরিক ছিল এবং ২৫০ জনকে অপহরণ করে। ইসরায়েল বিরামহীন বিমান ও স্থল অভিযানের মাধ্যমে জবাব দিয়েছে। গাজা উপত্যকায় হামাস সরকারের মিডিয়া অফিস বুধবার জানিয়েছে, অন্তত ২০,০০০ মানুষ নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৮,০০০ শিশু এবং ৬,২০০ জন মহিলা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পুরো গাজা ভযাবহ ক্ষুধার মুখোমুখি : জাতিসংঘ

আপডেট সময় : ০৯:২৪:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩

অনলাইন ডেস্ক : যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজার প্রতিটি মানুষ আগামী ছয় সপ্তাহের মধ্যে উচ্চ মাত্রার খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের ক্ষুধা পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থার একটি প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে।
আইপিসি নামে পরিচিত পাঁচ-স্কেল খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার শ্রেণি বিভাগ তার ‘সম্ভবত দৃশ্যপটে’ পূর্বাভাস দিয়েছে,৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ‘গাজা উপত্যকার সমগ্র জনসংখ্যা (প্রায় ২২ লাখ মানুষ)’ ‘সঙ্কট বা আরও খারাপ’ স্তরে থাকবে।
আইপসি বলেছে, এটি উচ্চ স্তরের তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন লোকদের মধ্যে সর্বোচ্চ অংশ যা আইপিসি উদ্যোগ কোন প্রদত্ত অঞ্চল বা দেশের জন্য শ্রেণিবদ্ধ করেছে।’
প্রতিদিনের বোমাবর্ষণ, খাদ্য ও পানির ঘাটতি এবং ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি সহ্য করা গাজাবাসীদের দুর্দশার বিষয়ে আন্তর্জাতিক সতর্কতা বেড়েছে।
ইন্টিগ্রেটেড ফুড সিকিউরিটি ফেজ ক্লাসিফিকেশন (আইপিসি) ক্ষুধার মাত্রা এক থেকে পাঁচ পর্যন্ত নির্ধারন করে।
প্রতিবেদনে সতর্ক করা হয়েছে, জনসংখ্যার প্রায় ৫০ শতাংশ ‘জরুরী’ পর্যায়ে থাকবে-যার মধ্যে রয়েছে খুব উচ্চ তীব্র অপুষ্টি এবং অতিরিক্ত মৃত্যুহার ৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে।
এটি ভবিষ্যদ্বাণী করেছে, ‘চারটি পরিবারের মধ্যে অন্তত একজন’, পাঁ লাখেরও বেশি মানুষ, ‘ফেজ-৫’ বিপর্যয়কর পরিস্থিতির মুখোমুখি হবে।
আইপিসি বলেছে, ‘যদিও তীব্র অপুষ্টি এবং নন-ট্রমা সংক্রান্ত মৃত্যুর মাত্রা এখনও দুর্ভিক্ষের সীমা অতিক্রম করতে পারেনি। এটি সাধারণত দীর্ঘায়িত এবং চরম খাদ্য গ্রহণের ব্যবধানের ফলাফল।’
আন্তর্জাতিক মানবিক সংস্থা কেয়ার বলেছে,পরিসংখ্যানগুলো ‘উদ্বেগজনক’ এবং জার্মানি তাদের ‘ভয়াবহ’ বলেছে।
‘এটি জরুরী যে, ইসরায়েল সহায়তার জন্য আরও ভাল মানবিক সহায়তা পাঠানোর পথ পরিষ্কার করে এবং তাদের সামরিক কৌশলকে মানিয়ে নেয় এবং মানবিক বিরতির অনুমতি দেয়,’ জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক্সে লিখেছিল, যা পূর্বে টুইটার নামে পরিচিত ছিল, সতর্ক করে যে ‘ক্ষুধা সন্ত্রাসকে লালন করে’।
ইসরায়েলি পরিসংখ্যানের উপর ভিত্তি করে এএফপি’র তথ্য অনুসারে, গাজায় যুদ্ধ শুরু হয় যখন এর ইসলামপন্থী শাসক হামাস ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে অনুপ্রবেশ করে এবং প্রায় ১,১৪০ জনকে হত্যা করে। এদের বেশিরভাগই বেসামরিক নাগরিক ছিল এবং ২৫০ জনকে অপহরণ করে। ইসরায়েল বিরামহীন বিমান ও স্থল অভিযানের মাধ্যমে জবাব দিয়েছে। গাজা উপত্যকায় হামাস সরকারের মিডিয়া অফিস বুধবার জানিয়েছে, অন্তত ২০,০০০ মানুষ নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৮,০০০ শিশু এবং ৬,২০০ জন মহিলা রয়েছে।