সর্বশেষ ::
নারীর ক্ষমতায়নে পুনাককে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান ড. রেবেকা সুলতানার নাম থেকে স্বামীর চিহ্ন মুছে ফেললেন মাহি রাজশাহী ফটো জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন আরএমপি’র কমিশনারসহ ৪০০ জনকে পদক পরালেন প্রধানমন্ত্রী বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিল রাজপাড়া থানা পুলিশ রাজশাহী এডিটরস ফোরামের কমিটি গঠন আরটিজেএ নির্বাচন : সভাপতি মেহেদী, সাধারণ সম্পাদক রাব্বানী নির্বাচিত ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি রাজশাহীতে যাত্রা শুরু করছে শহীদ কামারুজ্জামান নার্সিং কলেজ শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যানে চালু হলো দৃষ্টিনন্দন ড্যান্সিং ফোয়ারা

আওয়ামীলীগ ব্যাতিত কারো পক্ষে মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব না : অর্ণা

  • আপডেট সময় : ০৬:৩৬:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২৩ ১ বার পড়া হয়েছে

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : “জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে সারাদেশে বিজয় মিছিল হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ আমরা রাজশাহীতে বিজয় মিছিল করেছি।

আপনারা জানেন, আগামী ৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিজয় নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথে আছি। আপনারা দেখেছেন যারা সরকার বিরোধী, যারা স্বাধীনতা বিরোধী কুচক্রিমহল তারা কিভাবে সন্ত্রাসের রাজনীতি গড়ে তোলার চেষ্টা করে যাচ্ছে। গতকাল দেখেছেন একটা মা, একটা শিশুকে পুড়িয়ে মেরেছে। তারাই আবার পুলিশ পেটাচ্ছে, গাড়িতে আগুন দিচ্ছে, ট্রেনের লাইন উপড়ে ফেলছে। সেই রকম দলকে কি জনগন বেছে নিবে ? নির্বাচনে কি তারা জনগনের আশা আকাংখা ফুটিয়ে তুলতে পারবে? জনগন তাদেরই চাই যারা মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দিবে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ব্যাতিত কারো পক্ষে মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব নয়।”- ‍রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগ আয়োজিত বিজয় শোভাযাত্রা শেষে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও যুব-মহিলালীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ডা: আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার বিকাল ৪টায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ে সামনে থেকে বর্ণাঢ্য বিজয় শোভাযাত্রা বের করা হয়। বিজয় শোভাযাত্রা নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে গিয়ে শেষ হয়। এরপর সেখানে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

বিজয় শোভাযাত্রার সম্মুখে ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি। এরপরে বড় আকৃতির জাতীয় পতাকা ও আওয়ামী লীগের দলীয় পতাকা। র‌্যালিতে অংশগ্রহণকারীদের হাতে হাতে ছিল জাতীয় ও দলীয় পতাকা ও লাল-সবুজ বেলুন। শোভাযাত্রার দেশের ও রাজশাহীর উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরা হয়।

বিজয় শোভাযাত্রা শেষে সমাবেশে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, নির্বাচন আসলে যারা নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়, নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে চায়, নির্বাচনে জনগণের রায়ের মুখোমুখী হয়ে ভয় পায়, সেই বিএনপি জামায়াত আবারো ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ২০১৪/২০১৮ সালের মতো এবারো ষড়যন্ত্র করছে, আগুন সন্ত্রাসের মাধ্যমে মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করছে। লন্ডনে বসে তারেক জিয়া যেভাবে পুতুলের মতো নাচাচ্ছে দেশে বসে মির্জা ফখরুল গং রা সেভাবে নাচছে। ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে দেশকে অচল করে দেওয়ার তাদের অপচেষ্টা সফল হবে না।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও যুব-মহিলালীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ডা: আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা বলেন, ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে আমরা আবারো গনতন্ত্রের মানষকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নির্বাচিত করবো এবং পুনরায় প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসাবো। এরপর আমরা আমাদের কাজ করবো। ততদিন পর্যন্ত রাজপথে থেকে সকল বাধাকে ধুলিস্বাত করতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। আশাকরি দেশে জনগন আমাদের পাশে থাকবে এবং নৌকায় ভোট দিবে।

কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল। উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য বেগম আখতার জাহান। মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক পিন্টুর সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন নগর আওয়ামী লীগে সহ-সভাপতি তবিবুর রহমান শেখ, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা।

আরো উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকার, আজিজুল আলম বেন্টু সহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষিক লীগ, ছাত্রলীগ সহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আওয়ামীলীগ ব্যাতিত কারো পক্ষে মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব না : অর্ণা

আপডেট সময় : ০৬:৩৬:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২৩

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : “জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে সারাদেশে বিজয় মিছিল হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ আমরা রাজশাহীতে বিজয় মিছিল করেছি।

আপনারা জানেন, আগামী ৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিজয় নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথে আছি। আপনারা দেখেছেন যারা সরকার বিরোধী, যারা স্বাধীনতা বিরোধী কুচক্রিমহল তারা কিভাবে সন্ত্রাসের রাজনীতি গড়ে তোলার চেষ্টা করে যাচ্ছে। গতকাল দেখেছেন একটা মা, একটা শিশুকে পুড়িয়ে মেরেছে। তারাই আবার পুলিশ পেটাচ্ছে, গাড়িতে আগুন দিচ্ছে, ট্রেনের লাইন উপড়ে ফেলছে। সেই রকম দলকে কি জনগন বেছে নিবে ? নির্বাচনে কি তারা জনগনের আশা আকাংখা ফুটিয়ে তুলতে পারবে? জনগন তাদেরই চাই যারা মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দিবে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ব্যাতিত কারো পক্ষে মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব নয়।”- ‍রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগ আয়োজিত বিজয় শোভাযাত্রা শেষে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও যুব-মহিলালীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ডা: আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার বিকাল ৪টায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ে সামনে থেকে বর্ণাঢ্য বিজয় শোভাযাত্রা বের করা হয়। বিজয় শোভাযাত্রা নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে গিয়ে শেষ হয়। এরপর সেখানে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

বিজয় শোভাযাত্রার সম্মুখে ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি। এরপরে বড় আকৃতির জাতীয় পতাকা ও আওয়ামী লীগের দলীয় পতাকা। র‌্যালিতে অংশগ্রহণকারীদের হাতে হাতে ছিল জাতীয় ও দলীয় পতাকা ও লাল-সবুজ বেলুন। শোভাযাত্রার দেশের ও রাজশাহীর উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরা হয়।

বিজয় শোভাযাত্রা শেষে সমাবেশে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, নির্বাচন আসলে যারা নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়, নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে চায়, নির্বাচনে জনগণের রায়ের মুখোমুখী হয়ে ভয় পায়, সেই বিএনপি জামায়াত আবারো ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ২০১৪/২০১৮ সালের মতো এবারো ষড়যন্ত্র করছে, আগুন সন্ত্রাসের মাধ্যমে মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করছে। লন্ডনে বসে তারেক জিয়া যেভাবে পুতুলের মতো নাচাচ্ছে দেশে বসে মির্জা ফখরুল গং রা সেভাবে নাচছে। ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে দেশকে অচল করে দেওয়ার তাদের অপচেষ্টা সফল হবে না।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও যুব-মহিলালীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ডা: আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা বলেন, ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে আমরা আবারো গনতন্ত্রের মানষকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নির্বাচিত করবো এবং পুনরায় প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসাবো। এরপর আমরা আমাদের কাজ করবো। ততদিন পর্যন্ত রাজপথে থেকে সকল বাধাকে ধুলিস্বাত করতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। আশাকরি দেশে জনগন আমাদের পাশে থাকবে এবং নৌকায় ভোট দিবে।

কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল। উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য বেগম আখতার জাহান। মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক পিন্টুর সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন নগর আওয়ামী লীগে সহ-সভাপতি তবিবুর রহমান শেখ, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা।

আরো উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকার, আজিজুল আলম বেন্টু সহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষিক লীগ, ছাত্রলীগ সহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।