বাংলাদেশ দ্রুতই এগিয়ে যাচ্ছে : মার্কিন রাষ্ট্রদূত

97

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার বলেছেন, অর্থনৈতিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণেও ভালো ভূমিকা পালন করছে। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার বিকালে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মেয়রের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে গেলে নগর ভবনে তাদের এই মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন শিক্ষা, যোগাযোগ ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য ও শিল্পায়নে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা কামনা করেন। এ সময় সহযোগিতার আশ^াস দেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত।

রবার্ট মিলার বলেন, আমি জেনেছি রাজশাহী শিক্ষানগরী। রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়সহ এখানকার অনেক শিক্ষার্থী আমেরিকায় পড়াশোনা করে। সেখানে তারা ভালো করছে। রাজশাহী ও আমেরিকা যৌথভাবে শিক্ষাক্ষেত্রে পারষ্পারিক বিনিময়ের সুযোগ রয়েছে।

মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহী কৃষিপ্রধান অঞ্চল। এখানে বিপুল পরিমাণ সবজি, আলু, টমোটো ও আমসহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন হয়। এসব উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে বাইরের দেশে রপ্তানি করা যাবে। এ সময় রাজশাহী সফরে আসায় মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানান মেয়র লিটন।

মতবিনিময়ের পর নগর ভবনের বঙ্গবন্ধু কর্ণার পরিদর্শন করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন তাঁকে বঙ্গবন্ধু কর্ণার ঘুরে দেখান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র ও ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযিম, ২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোমিন, ১৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাওগাতুল আলম, সচিব রেজাউল করিম, প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সমর কুমার পাল, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধু কর্ণার পরিদর্শন করলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত: মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পর রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নগরভবনের বঙ্গবন্ধু কর্ণার পরিদর্শন করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার। এ সময় মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন তাঁকে বঙ্গবন্ধু কর্ণার ঘুরে দেখান। পরিদর্শন শেষে মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে দুইটি বই উপহার দেন মেয়র।

SHARE