চতুর্থ দিনের বইমেলা পাঠক ও লেখকদের আনাগোনায় সৌন্দর্য বেড়েছে

63

স্টাফ রিপোর্টার : পাঠকের পদচারণায় ও লেখকদের আনাগোনায় বইমেলার সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলেছে। এভাবেই নগর ভবনের গ্রিনপ্লাজায় গতকাল বুধবার চতুর্থ দিন পার হলো বইমেলা।
নগরভবনে সাংস্কৃতিক আসর আর বইমেলার স্টল দর্শনার্থীদের এবং ব্যবসায়ীদের অন্যতম ক্ষেত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। নগরভবন গ্রিনপ্লাজার অনুষ্ঠানচত্তর সকল বয়সি মানুষদের একত্রিত করেছে। এতে করে প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে গ্রিণপ্লাজা চত্ত্বর। এতে করে বই দেখার পাশাপাশি বিক্রিও হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের লেখকদের স্টলে শোভা পাওয়া বই। গতকাল বই মেলায় ইত্যাদি প্রকাশের বিক্রেতা মিজান জানান, স্টল থেকে চারুকলা বইটি বেশি বিক্রি হয়েছে। বইটি এখন স্টক আউট। পাঠকদের ব্যাপারে তিনি আরও জানান, আমি একটা কথা বলতে চাই। কেউ বই কিনুক আর না কিনুক সবাই যেন দেখতে আসুক। এটাতেই আমার আনন্দ।
বই মেলায় আগত লেখক রওশাতুল রিয়া বলেন, আমি প্রথম উপন্যাস লিখেছি কাল্পনিক প্রেমকে ঘিরে একটি মেয়ের নিজেকে দৃঢ় করার কাহিনী। এটি মোটামুটি ভালোই সেল হয়েছে। ছোট বেলা থেকে লেখালেখির শখ ছিল। স্কুল ম্যাগাজিনে, পত্রিকায় এবং রেডিওতে নাটক লিখেছি।
দর্শনার্থী বসাক রায় বলেন,ভালোলাগা থেকে বই পড়ি।
অন্যন্যা থেকে মো. জয়নুল আবেদিন বলেন, মেলার প্রথম এবং দ্বিতীয় দিন বই ভালো বিক্রি হয়েছে। তৃতীয় ও চতুর্থ দিন থেকে দর্শনার্থী কম আসছে। বিক্রির তালিকায় আছে হুমায়ন আহমেদ এবং মুক্তিযুদ্ধের বইটি।
সুলতানা আরা জানান, ছেলেকে বই দেখতে নিয়ে এসছেন । ছেলে রিহানের ডাইনাসর বইটি পছন্দ সেটি কিনেছে।
আইডিয়া প্রকাশন থেকে রনি বলেন, বিক্রি মোটামুটি হচ্ছে। ক্রেতার চেয়ে দর্শনার্থী বেশী। তবে শেক্সপিয়রের হ্যামলেট এবং অনিশ্চয়তা বইটি বিক্রির তালিকায় আছে।

SHARE