রাজশাহীতে নৌকার প্রচারণায় টিয়ারশেল নিক্ষেপ

162

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী-২ (সদর) আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনি প্রচারণার সময় টিয়ারশেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে নগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের গোয়ালপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ বলছে, যেটি নিক্ষেপ করা হয়েছে সেটি গ্যাসগানের টিয়ারশেল। তারা আলামত উদ্ধার করেছেন। আর এ ঘটনার জন্য বিএনপি-জামায়াতকে দায়ি করেছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশা। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিএনপি।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেশকিছু নারীদের নিয়ে গোয়ালপাড়া এলাকায় নৌকা প্রতীকের প্রচারণা চালাচ্ছিলেন সদরের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশার স্ত্রী অধ্যাপিকা তসলিমা খাতুন। এ সময় কয়েকজন যুবক পর পর দুটি টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। তসলিমা খাতুনের কাছ থেকে মাত্র কয়েকহাত দুরেই টিয়ারশেল দুটি পড়ে। এ সময় ধোয়া ও ঝাঁঝালো গন্ধে নারীরা দূরে সরে যান। যারা টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছিল তারাও দৌড়ে পালিয়ে যায়।

রাজশাহী সদরে ১৪ দল মনোনীত প্রার্থী বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এ ঘটনার জন্য তার প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মিজানুর রহমান মিনুকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, এটা বিএনপি-জামায়াতের নাশকতার পরিকল্পনার একটা অংশ। নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় জেনে তারা এখন সহিংসতার পথ বেছে নিচ্ছে।

বাদশা বলেন, মিনু জঙ্গিদের মদদদাতা। তার পক্ষে জামায়াত-শিবিরের জঙ্গিরা মাঠে নেমেছে। তারা মুখোশ পরে শহরে মিছিল করছে। আমি আগেই বলেছি, এসব নিয়ে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। নৌকা প্রতীকের প্রচারণার সময় এই হামলা আমাদের চিন্তিত করছে।

তিনি বলেন, মহানগর বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের ফোনালাপের একটি অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে। এতে ২৮ ডিসেম্বর থেকে নির্বাচনে সহিংসতা করার জন্য তাকে নির্দেশ দিতে শোনা যাচ্ছে। এখন দেখা যাচ্ছে, ২৮ ডিসেম্বরের আগেই তারা সহিংসতা শুরু করেছে।

জানতে চাইলে সাবেক সিটি মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, সহিংসতা করার শক্তি আমাদের নেই। আমাদের নেতা-কর্মী দিয়ে জেলখানা ভর্তি হয়ে গেছে। নির্বাচন শুরুর পর শহর থেকে ৩২ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এসব হামলা-টামলার বিষয়ে কিছু জানি না।

এ বিষয়ে নগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আলামত সংগ্রহ করেছেন। এ নিয়ে তারা আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

 

SHARE