নির্বাচনে রাজশাহীতে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই: বাদশা

165

স্টাফ রিপোর্টার : একাদশ সংসদ নির্বাচনে রাজশাহীতে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই বলে অভিযোগ করেছেন সদর আসনে ১৪ দল মনোনীত ও মহাজোট সমর্থিত প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি বলেছেন, তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী মিজানুর রহমান মিনুর বিরুদ্ধে জঙ্গি মদদদানের অভিযোগ আছে। আর জঙ্গি মদদদাতা প্রার্থীরা প্রচারে নামলে তাদের পেছনে জঙ্গিরাই দাঁড়াবে। তারা সহিংসতা করবে। তাই মনে করি, রাজশাহীতে আমাদের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই।

বুধবার দুপুরে রাজশাহী সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের এক নির্বাচনি সভায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এ কথা বলেন। রাজশাহী আদালতের ১ নম্বর বার ভবনে এ সভার আয়োজন করা হয়। সভায় সাবেক প্রতিমন্ত্রী জিনাতুন নেশা তালুকদার ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারও উপস্থিত ছিলেন।

বাদশা বলেন, রাষ্ট্র যেখানে জঙ্গিদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স সেখানে তাদের মদদদাতাদের নির্বাচন করতে দেয়া ঠিক হয়নি। এটা নির্বাচন কমিশন ঠিক করেনি। নির্বাচন কমিশন মারাত্মক ভুল করেছে।

রাজশাহী সদর আসনের টানা দুইবারের এই সংসদ সদস্য বলেন, আজকে সবার কাছে জানতে চাই, জঙ্গিবাদ চান, নাকি উন্নয়ন চান? যদি উন্নয়ন চান তাহলে নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন। আমরা নির্বাচিত হলে আমাদের প্রধানমন্ত্রী কে হবেন তা সবাই জানেন। কিন্তু বিএনপি নির্বাচিত হলে তাদের প্রধানমন্ত্রী কে হবেন, এ প্রশ্ন অনেকের কাছে করেছি। কেউ উত্তর দিতে পারেননি। এখন যিনি প্রধানমন্ত্রী হবেন, তার সম্পর্কে যদি কিছু না-ই জানি, দেশ চালাতে পারবেন কি না তার সে দক্ষতা সম্পর্কেও যদি না জানি, তাহলে কাকে ভোট দিব? সাধারণ মানুষ অকপটে আমাকে বলছে, নৌকায় ভোট দিব। কারণ, তিনি বিগত ১০ বছরে দেশকে এগিয়ে নিয়েছেন। এটা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই।

বাদশা বলেন, আমরা শুধু নিজের আসনের জন্য নির্বাচন করছি না। আমরা ৩০০ আসনের জয়ের লক্ষ্য নিয়ে নির্বাচিত করছি। কারণ, আমরা আবারও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসাতে চাই। এ জন্য আমি আইনজীবীদের সহায়তা কামনা করি। কারণ, সমাজে তাদের গ্রহণযোগ্যতা আছে। মানুষ তাদের বিশ্বাস করে। আইনজীবীরা নৌকার পক্ষে কাজ করলে বিজয় সহজ হবে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী অ্যাডভোকেট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি লোকমান আলী। বক্তব্য দেন, সাধারণ সম্পাদক একরামুল হক, মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট মোজাফফর হোসেন, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য মো. ইয়াহিয়া, জেলা জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ইবরাহীম হোসেন প্রমুখ। অ্যাডভোকেট মো. রাশেদুন্নবী সভা পরিচালনা করেন।

SHARE