উদ্বোধনের অপেক্ষায় ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা

189

স্টাফ রিপোর্টার : বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা। এবারে রাজশাহীতে সবচেয়ে সুন্দর,  তথ্যবহুল ও সেরা মেলার প্রত্যাশায় অনুষ্ঠিত হবে এই মেলা। জাকজমকপূর্ণ ও জমকানো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই মেলা উদ্বোধন করা হবে বলে জানা গেছে।

এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরের উন্নয়ন কর্মকান্ড নিয়ে সাজানো হয়েছে প্রতিটি স্টল। স্টলে স্টলে বির্ণিল সাজ শোভা পাচ্ছে। বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারিবৃন্দ নিজ নিজ দপ্তরের উন্নয়ন কর্মকান্ড মেলে ধরার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। মেলায় সেরা স্টল হওয়ার প্রতিযোগিতা থাকায় দপ্তরগুলো নিজের আঙ্গিক ও মাত্রিক দিয়েই উপস্থাপন করছে স্টলগুলো।

মেলাকে সার্বজনীন ও প্রাণবন্ত করে তুলতে রাজশাহীর ঐতিহ্য টমটম গাড়ি র‌্যালি ও মেলার মাঠে অবস্থান করবে। এবারের মেলায় সবচেয়ে বড় আকর্ষণ থাকছে বড় বড় দু’টি হাতির উপস্থিতি। এছাড়াও পুরো মাঠ জুড়ে থাকছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত ব্যানার। মেলায় যে কোন ঘটনা এড়াতে রয়েছে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা বাহিনী। আরো থাকছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে তিন দিনব্যাপি উন্নয়ন মেলা উপলক্ষে এভাবেই সাজানো হয়েছে রাজশাহী কলেজ মাঠ। এবারের মেলা হবে সত্যিকারভাবে উপভোগ্য ও আকর্ষনীয়।

বুধবার সন্ধ্যায় মেলার মাঠ পরিদর্শন করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সেবা ও সুরক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মনিরুল আলম। এ সময় সাথে ছিলেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের, এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আলমগীর কবির, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবুল হায়াৎ মো. রহমত উল্লাহ।

এরআগে মঙ্গলবার বিকালে এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের। জেলা প্রশাসক সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন। তিনি বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের মেয়াদে বাংলাদেশে যুগান্তকারী উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। বর্তমান সরকারের অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং এমডিজি অর্জন সংক্রান্ত উন্নয়নের গতিশীল ধারা সম্পর্কে সকলকে অবহিত করার লক্ষ্যে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। তিনি প্রান্তিক জনগোষ্ঠী ও তরুণ সমাজের কাছে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম তুলে ধরার জন্য সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানান।

তিনি বলেন, মেলায় ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নয়নের রূপকল্প বা উন্নত বাংলাদেশের প্রস্তাবনা সম্পর্কেও জনগণকে অবহিত করতে হবে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে এ মেলাটি যাতে সুষ্ঠু, সুন্দর এবং প্রাণবন্ত করে গড়ে তোলার মাধ্যমে সরকারের উন্নয়নকে জনগণের দুয়ারে দুয়ারে পৌঁছানো যায় এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি। তিনি বলেন, মেলায় সেবা থাকবে তাৎক্ষনিক পাসপোর্সের ব্যবস্থা করা, ড্রাইভিং ও মোটরযান রেজিস্ট্রেশন, জমির খারিজ।

তিনি জানান, মেলায় ১৭৮ টি স্টল শোভা পাবে। এছাড়াও মেলায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে সরকারের সফলতা বিষয়ক রিয়েলিটি শো প্রদর্শন এবং মুক্তিযুদ্ধ ও সরকারের সফলতাকে উপজীব্য করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এ ব্যাপারে যথেষ্ট নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রতিদিন সকাল নয়টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা থাকবে। আগামী ৬ অক্টোবর সন্ধ্যায় রাজশাহী কলেজ মাঠে আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও সমাপনী অনুষ্ঠিত হবে।

SHARE